জয়পুরহাট পৌরসভা নির্বাচনে ভোট কেন্দ্রগুলো থেকে বিএনপির এজেন্টদের বের করে দেওয়াসহ বিভিন্ন তুলে ধরেছেন বিএনপি দলীয় মেয়র প্রার্থী শামছুল হক। তিনি এই নির্বাচনকে প্রহসনের নির্বাচন বলে আখ্যায়িত করে পুননির্বাচনের দাবি জানিয়েছেন। রোববার দুপুরে শহরের হক ভিলায় সংবাদ সম্মেলন করে বিএনপি দলীয় মেয়র প্রার্থী শামছুল হক এসব দাবি জানান।

শামছুল হকের অভিযোগ, সকাল আটটায় ভোট শুরুর পর পরিবেশ ভালো ছিল। পরে সকাল ১০টার দিকে প্রতিটি ভোটকেন্দ্রে বহিরাগতরা দখলে নিয়ে তার এজেন্টদের বের করে দেন। আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থীর লোকজন গোপন কক্ষে দাড়িয়ে থেকে ইভিএমে নৌকার বাটনে চাপ দিচ্ছিলেন। খঞ্জনপুর উচ্চবিদ্যালয় ভোটকেন্দ্র তার নির্বাচনী প্রধান এজেন্ট ফজলুর রহমানের গাড়িতে হামলা করা হয়েছে। অথচ প্রশাসন নিস্ক্রিয় ভূমিকায় ছিল।

নির্বাচনের নামে জয়পুরহাটবাসীর সঙ্গে প্রতারনা করা হচ্ছে উল্লেখ করে বিএনপির প্রার্থী এই নির্বাচন বাতিল করে পুনরায় নির্বাচনের দাবি জানান।

সংবাদ সম্মেলনে জয়পুরহাট সদর উপজেলা পরিষদের সাবেক নারী ভাইস চেয়ারম্যান জাহেদা কামাল বলেন, আমি আর,বি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে বিএনপির মেয়র প্রাথীর এজেন্ট ছিলাম। আমাকে ভোটকেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে।

আওয়ামী লীগের দলীয় মেয়র প্রাথী মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক বিএনপির মেয়র প্রার্থীর এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, পরাজয় নিশ্চিত জেনে আমাদের বিরুদ্ধে এসব অসত্য ও কাল্পনিক অভিযোগ করা হয়েছে।

এ সময় জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক মাসুদ রানা প্রধান, সদস্য আলী হাসান মুক্তাসহ ছাত্রদল, যুবদলের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।।
 

বিষয় : পৌরসভা নির্বাচন পুননির্বাচনের দাবি

মন্তব্য করুন