চীনে সংখ্যালঘু মুসলমানদের হত্যা, নির্যাতন, ধর্ষণ এবং পুনঃশিক্ষার নামে বন্দিশিবিরে আটকে রাখার প্রতিবাদে শুক্রবার জুমার নামাজের পর বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে কয়েকটি ধর্মভিত্তিক দল। উইঘুর মুসলিমদের ওপর নির্যাতনের প্রতিবাদে চীনের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করতে সরকারের প্রতি দাবি জানান সমাবেশের বক্তারা।

বিক্ষোভ মিছিল পূর্ব সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় জনসেবা আন্দোলনের চেয়ারম্যান মুফতি ফখরুল ইসলাম বলেন, ‘চীন যদি উইঘুর মুসলিমদের ওপর নির্যাতন বন্ধ না করে, সারাবিশ্বের মুসলমানরা চুপচাপ বসে থাকবে না। প্রয়োজনে বাংলাদেশ থেকে চীনের রাষ্ট্রদূতকে বহিস্কার করতে হবে। কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করতে হবে। সরকার যেনো অন্তত চীনের রাষ্ট্রদূতকে ডেকে সতর্ক করে। মুসলমান নির্যাতন বন্ধ করা না হলে, বাংলাদেশে কোনো চীনা নাগরিককে বরদাস্ত করা হবে না।’

খেলাফত আন্দোলনের মহাসচিব আজম খান বলেন, ‘চীন সরকার উইঘুর মুসলমানদের উপর দীর্ঘদিন ধরে জুলুম নির্যাতন চালাচ্ছে। বিশ্বের সকল গণতান্ত্রিক দেশকে অত্যাচারী চীন সরকারের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।’

সমাবেশে শেষে বিক্ষোভ মিছিল পল্টন মোড়, দৈনিক বাংলা ঘুরে উত্তর গেটে এসে শেষ হয়। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন মুফতি জাকির হুসাইন। আরও বক্তৃতা করেন জনসেবা আন্দোলনের মহাসচিব মুফতী ইয়ামিন হুসাইন আজমী, মুফতি আবদুল্লাহ, মুফতি আবদুল আলিম, মুফতি আবু দারদা, মাওলানা দেলওয়ার হুসাইন প্রমুখ।