বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানকে বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি ও স্বাধীনতার ঘোষক বলায় দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ ২৫ জনের বিরুদ্ধে সুনামগঞ্জে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়েছে। আসামির তালিকায় যুক্তরাজ্য বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কয়ছর আহমেদও রয়েছেন।

সোমবার দুপুরে জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কুদরত-এ-এলাহীর আদালতে মামলাটি দায়ের করা হয়। আদালত মামলাটি গ্রহণ করে তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানাকে নির্দেশ দেন বলে জানিয়েছেন মামলার বাদীপক্ষের আইনজীবী ও জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আখতারুজ্জামান সেলিম।

তিনি জানান, মামলাটি দায়ের করেছেন সিলেটের মোগলাবাজার থানার রায়খাইল গ্রামের বাসিন্দা মঈনুল ইসলাম। তিনি ওই গ্রামের প্রয়াত আব্দুস শহিদের ছেলে। মঈনুল ইসলাম যুক্তরাজ্যের নাগরিকও।

মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে, তারেক রহমানসহ অন্য আসামিরা ডিজিটাল মাধ্যমে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, জাতির পিতা, জাতীয় সঙ্গীত ও জাতীয় পতাকার বিরুদ্ধে প্রোপাগান্ডা প্রচারণা চালিয়ে এবং বিভিন্ন ওয়েবসাইট ও ডিজিটাল ম্যাধমে আক্রমণাত্মক মিথ্যা তথ্য-উপাত্ত পাঠিয়ে, প্রকাশ ও প্রচার করে বাংলাদেশের সংবিধান, স্বাধীনতা, স্বার্বভৌমত্ব, মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, জাতির পিতা, জাতীয় সঙ্গীত ও জাতীয় পতাকার অবমাননা করেছেন।

মামলায় আরও উল্লেখ করা হয়েছে, তারেক রহমানসহ অন্য আসামিরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে অপমান, হেয় ও ছোট করেছেন। তারেক রহমান তার ইউটিউব চ্যানেলে তার বাবা জিয়ার রহমানকে বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি এবং স্বাধীনতার ঘোষক দাবি করে বক্তব্য রেখেছেন। তারেক রহমানসহ অন্য সব আসামি নিজেদের মধ্যে যোগসাজশে এসব অপকর্ম ও অপরাধ করেছেন।

মামলায় বাদী উল্লেখ করেছেন, গত বছরের ১৯ ডিসেম্বর ও চলতি বছরের ২১ জানুয়ারি সুনামগঞ্জ শহরের তেঘরিয়া হাসনরাজা জাদুঘরের সামনে অপেক্ষারত অবস্থায় তিনি তারেক রহমানের ইউটিউব চ্যানেলে এসব অপরাধ প্রচারের বিষয়টি দেখেছেন। বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহ করতে সময় অতিবাহিত হওয়ায় মামলা দায়ের করতে বিলম্ব হয়েছে বলেও তিনি উল্লেখ করেছেন।

মন্তব্য করুন