ঢাকা মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪

প্রার্থী ঋণখেলাপি হলে রিটার্নিং কর্মকর্তাকে জানাতে হবে

বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা

প্রার্থী ঋণখেলাপি হলে রিটার্নিং কর্মকর্তাকে জানাতে হবে

ফাইল ছবি

সমকাল প্রতিবেদক

প্রকাশ: ৩০ নভেম্বর ২০২৩ | ২২:৫৬ | আপডেট: ৩০ নভেম্বর ২০২৩ | ২২:৫৭

কোনো ঋণখেলাপি ব্যক্তি নির্বাচনে প্রার্থী হলে তা জানানোর জন্য ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। 

আজ বৃহস্পতিবার এক নির্দেশনায় কেন্দ্রীয় ব্যাংক বলেছে, আগামী ৭ জানুয়ারি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ সামনে রেখে প্রার্থীর মনোনয়পত্র বাছাই হবে আগামীকাল শুক্রবার থেকে আগামী ৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত। প্রয়োজনে ছুটির দিন অফিস খোলা রেখে এ তথ্য রিটার্নিং কর্মকর্তাকে জানাতে হবে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশনার সঙ্গে অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের এ সংক্রান্ত পরিপত্র সংযুক্ত করা হয়েছে। সেখানে তথ্য পাঠানোর নিয়মসহ বিভিন্ন বিষয় উল্লেখ করা হয়। 

এতে বলা হয়, গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ অনুযায়ী কোনো প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার আগে নেওয়া ঋণ খেলাপি হলে তিনি নির্বাচনে অযোগ্য হবেন। আবার প্রার্থী এমন কোনো কোম্পানি বা ফার্মের অংশীদার, যা ঋণখেলাপিু তিনিও নির্বাচন করতে পারবেন না। কেউ খেলাপি প্রতিষ্ঠান থেকে পদত্যাগ করলে যতক্ষণ পর্যন্ত ব্যাংক কোম্পানি আইনের সংশ্লিষ্ট বিধানের অধীন এবং ক্ষেত্রমতে বাংলাদেশ ব্যাংক ও সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের সম্মতিতে ওই পরিবর্তন আরজেএসসি থেকে গৃহীত হয়ে সংশ্লিষ্ট দলিল সংশোধন হবে ততক্ষণ তা বৈধ হবে না।

পরিপত্রে বলা হয়, ঋণখেলাপির তথ্য মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের দিন বা তার আগে সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তাকে দিতে হবে। এ ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের শাখা ব্যবস্থাপকরা সব হিসাব হালনাগাদ করে তালিকা প্রস্তুত করবেন। এ ক্ষেত্রে শাখা ব্যবস্থাপক জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত বা অন্য উৎস থেকে প্রার্থীর তালিকা সংগ্রহ করে শাখাভুক্ত কোনো ঋণখেলাপি প্রার্থী হয়েছেন কিনা নিশ্চিত হবেন। আর মনোনয়নপত্র দাখিলের পরই রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছ থেকে প্রার্থীর পিতা, মাতা, স্বামী বা স্ত্রীর নাম ও ঠিকানাসহ তালিকা সংগ্রহ করবেন। প্রার্থীর ঋণখেলাপি-সংক্রান্ত তথ্য রিটার্নিং কর্মকর্তাকে পাঠাতে হবে। মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের সময় কাগজপত্রসহ সংশ্লিষ্ট ব্যাংক কর্মকর্তাকে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে উপস্থিত থাকতে হবে। 

এতে বলা হয়, যেসব প্রার্থী নিজ নির্বাচনী এলাকার পরিবর্তে অন্যত্র ঋণ হিসাব পরিচালনা করেন, তাদেরও তথ্য পাঠাতে হবে। কেউ ভুল তথ্য দিলে কিংবা ঋণখেলাপির তথ্য দিতে ব্যর্থ হলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে শৃঙ্খলামূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন থেকে বাছাই সম্পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত সরকারি বা সাপ্তাহিক ছুটি এবং অফিস সময়ের পর হলেও নিজ দপ্তর বা রিটার্নিং কর্মকর্তার দপ্তরে উপস্থিত থাকতে হবে। রিটার্নিং কর্মকর্তা কোনো তথ্য কিংবা সহায়তা চাইলে ব্যাংক থেকে দিতে হবে।

আরও পড়ুন

×