বর্ষা মৌসুম শুরু হওয়ার আগে কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার মোগলবাসা ইউনিয়নের চর সিতাইঝাড় এলাকায় ধরলা নদীর ভাঙনরোধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছে এলাকাবাসী। শনিবার দুপুরে ধরলা নদীর বাম তীরের চর সিতাইঝাড় গ্রামে নদীটির পাড়ে মানববন্ধন ও সমাবেশ করে এ দাবি জানানো হয়েছে।

অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন চর সিতাইঝাড় নুরানী ও হাফিজিয়া মাদ্রাসার শিক্ষক আব্দুল গফুর, সাবেক ইউপি মেম্বার কেরামত আলী, পল্লী চিকিৎসক আমির হোসেন, স্থানীয় অধিবাসী দারোগা আলী ও ইউনুছ আলী প্রমুখ।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, ধরলার বাম তীরে অবস্থিত মোগলবাসা ইউনিয়নের ফজলের মোড় থেকে চর সিতাইঝাড় নুরানী ও হাফিজিয়া মাদ্রাসা পর্যন্ত প্রায় দুই কিলোমিটার এলাকাজুড়ে দীর্ঘদিন ধরে ভাঙন চলছে। প্রতিবছর বাড়িঘর, আবাদি জমি, গাছপালা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন স্থাপনা বিলীন হয়ে যাচ্ছে। অথচ বারবার অনুরোধ করা সত্ত্বেও পানি উন্নয়ন বোর্ড এ এলাকার ভাঙনরোধে প্রতিরক্ষামূলক কোনো কাজ করেনি।

মোগলবাসা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুরজামাল বাবলু জানান, তার ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডভুক্ত ওই এলাকার ভাঙনরোধে বর্ষা মৌসুম শুরুর আগে প্রতিরক্ষামূলক কাজ করা জরুরি হয়ে পড়েছে।

এ প্রসঙ্গে কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী মো. আরিফুল ইসলাম জানান, ধরলা নদীর বাম তীরে অবস্থিত চর সিতাইঝাড়ে ভাঙনরোধে এক কিলোমিটার এলাকাজুড়ে বালু ভর্তি জিওব্যাগ ফেলার জন্য পাঁচ কোটি টাকা বরাদ্দ চেয়ে প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে। বরাদ্দ পাওয়া গেলে কাজ করা হবে।