গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার যে অবস্থা তাতে তার উন্নত চিকিৎসা প্রয়োজন। তিনি অসুস্থ। তার এই বয়সে ফুসফুসে পানি আসা খুব খারাপ লক্ষণ। যেকোনো সময় যেকোনো কিছু হতে পারে। তাকে এই মুহূর্তে জামিন দিতে অসুবিধা কোথায়?’

রোববার টাঙ্গাইলের সন্তোষে মওলানা ভাসানীর মাজার জিয়ারত শেষে দুস্থদের মাঝে ত্রাণ বিতরণের আগে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব বলেন।

ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘তর্ক বিতর্ক না করে মানবতার কারণে, দেশের জন্য, সবার জন্য আজকেই খালেদা জিয়াকে জামিন দেয়া উচিৎ। যাতে যেখানে ইচ্ছা সেখানে গিয়ে তিনি চিকিৎসা নিতে পারেন। এ সময়ে আমাদের সবার উচিত হবে খালেদা জিয়ার জন্য দোয়া করা।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানসহ অন্যান্যরা সর্দি-কাশি হলেও চিকিৎসার জন্য বিদেশে যান, চিকিৎসা নেন। অনেক বিত্তবানরাও চিকিৎসা নিতে বিদেশে যান। তাহলে খালেদা জিয়া যদি বিদেশে গিয়ে চিকিৎসা নিতে চান সেই সুযোগ তাকে দেওয়া উচিৎ। এখন খালেদা জিয়াকে নিয়ে যে চালাচালি ও চালাকি চলছে সেটা তার চিকিৎসার জন্য, দেশের জন্য, পুরো জাতির জন্য একটি বিপজ্জনক সমস্যার সৃষ্টি হবে।’

মোদি বিরোধী আন্দোলনে গ্রেপ্তার ছাত্রদের সম্পর্কে জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘ছাত্ররা ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিরুদ্ধে কথা বলেছে। এজন্য তাদেরকে আটক রাখবে? এখন কারাগারে মহামারি করোনা ছড়িয়ে পড়েছে। বন্দিরা আক্রান্ত হচ্ছেন। তাই আজকে মানবতার খাতিরে শুধুমাত্র যারা খুনি, যারা মানবতাকে খুন করেছে তাদের ছাড়া সবাইকে জামিন দিয়ে দেওয়া হোক।’

তিনি বলেন, ‘দেশ একটি বিপর্যস্ত সময় অতিবাহিত করছে। যেভাবে গত কয়েকদিন মানুষ রাস্তায় বের হয়েছেন তাতে রোগ আরো বাড়বে। রোগ প্রতিরোধ করতে বাড়িতে যাওয়ার আগে সবার করোনা পরীক্ষা করার নিয়ম রাখা দরকার ছিলো। এখনতো সরকার করোনায় কম মৃত্যু দেখানোর জন্য কম পরীক্ষা করছে। এই সময়ে যারা দেশ চালাচ্ছেন তাদেরকে ধমক দিয়ে কথা বলার জন্য একমাত্র লোক ছিলেন মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী।’

জাফরুল্লাহ বলেন, ‘ভাসানীর পথ অবলম্বন করলে সবাই ভালোভাবে বেঁচে থাকবেন। কেউ খাবে, কেউ খাবে না সেটা হতে পারে না। যাদের ঘাড়ে ভর করে এই জাতির টিকে আছে, যাদের কারণে আমাদের উৎপাদন হয়, কলকারখানার চলে তাদের দুঃখে-কষ্টে এভাবে দেশ চলতে পারে না, এটা অন্যায়। এই অন্যায় অবিচারের জন্য আমাদের সকলকে সম্মিলিতভাবে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।’

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, মওলানা ভাসানী অনুসারী পরিষদের মহাসচিব শেখ রফিকুল ইসলাম বাবলু, প্রেসিডিয়াম সদস্য নঈম জাহাঙ্গীর, এরফানুল বারী, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রেস উপদেষ্টা জাহাঙ্গীর আলম মিন্টু, মুক্তিযোদ্ধা কবি বুলবুল খান মাহবুব, ভাসানী অনুসারী পরিষদের কেন্দ্রীয় সদস্য ফরিদ উদ্দিন, টাঙ্গাইল জেলা ভাসানী অনুসারী পরিষদের সভাপতি আব্দুল হামিদ, সাধারণ সম্পাদক হেদায়েত উল্লাহ খান শোভা প্রমুখ।