কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, অঞ্চলভেদে ৫০-৭০ শতাংশ ভর্তুকি দিয়ে কম্বাইন হারভেস্টার, রিপারসহ বিভিন্ন কৃষি যন্ত্রপাতি কৃষকদের দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু ভর্তুকি দেওয়ার পরও একটি কম্বাইন হারভেস্টার কিনতে ১০ থেকে ১৫ লাখ টাকা কৃষককে দিতে হয়। অনেক ক্ষেত্রেই এই পরিমাণ অর্থ দিয়ে কৃষক যন্ত্র কিনতে পারেন না। অন্যান্য কৃষিযন্ত্রের বেলায়ও একই ঘটনা। সেজন্য বিভিন্ন ব্যাংক থেকে যাতে কৃষকরা কৃষিযন্ত্র কেনায় সহজ শর্তে ঋণ পেতে পারেন, সে বিষয়ে উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষ থেকে অনলাইনে 'কৃষি যান্ত্রিকীকরণ' ত্বরান্বিত করতে সংশ্নিষ্ট স্টেকহোল্ডারদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে বেশিরভাগ যন্ত্রপাতি বিদেশ থেকে আমদানি করতে হয়। তা আমরা কমিয়ে আনতে চাই। এ ছাড়া স্থানীয়ভাবে খুচরা যন্ত্রাংশ তৈরি ও মেরামত কারখানা তৈরিতে গুরুত্ব দিচ্ছি, যাতে স্থানীয় পর্যায়ে কর্মসংস্থান বাড়ে। এ বিষয়ে কৃষিযন্ত্র প্রস্তুতকারী, নির্মাতা ও আমদানিকারকদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান মন্ত্রী।

সভায় সভাপতিত্ব করেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব মো. মেসবাহুল ইসলাম। এ সময় মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (পরিকল্পনা) ড. মো. আবদুর রৌফ, অতিরিক্ত সচিব (পিপিসি) মো. রুহুল আমিন তালুকদার, অতিরিক্ত সচিব (সম্প্রসারণ) হাসানুজ্জামান কল্লোল, অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) ওয়াহিদা আক্তার, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. আসাদুল্লাহ, কৃষি যান্ত্রিকীকরণ প্রকল্পের পরিচালক বেনজীর আলম উপস্থিত ছিলেন।