অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এডিসি) ও সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) পদ মর্যাদার ৯৮ কর্মকর্তাকে বদলি ও পদায়ন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার পুলিশ সদর দপ্তর থেকে পৃথক তিনটি আদেশে এই নির্দেশনা দেওয়া হয়। 

নতুন কর্মস্থলে বদলি ও পদায়ন করা ৯৮ জনের মধ্যে র‌্যাবে কর্মরত ছিলেন এমন ৫০ জন রয়েছেন। যাদের র‌্যাব থেকে এনে পুলিশের অন্যান্য ইউনিটে পদায়ন করা হয়।

পুলিশ সদর দপ্তরের একজন কর্মকর্তা বলেন- সম্প্রতি পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপাদের পুলিশ সুপার ও সহকারী পুলিশ সুপারদের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে বড় ধরনের পদোন্নতি হয়। এ কারণে এখন ৯৮ জনকে বদলি ও পদায়ন করা হলো। আর র‌্যাব থেকে ৫০ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও সহকারি পুলিশ সুপারদের বদলি আর পদায়নের ব্যাপারে জানতে চাইলে বাহিনীর কেউ মন্তব্য করতে রাজি হননি।

এদিকে সম্পতি সদ্য পদোন্নতি পাওয়া ৪৭ পুলিশ সুপারকে (এসপি) র‌্যাবে বদলি করা নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে তাদের বদলির আদেশ জারি হয়েছিল। ২০০৪ সালে পুলিশের বিশেষায়িত বাহিনী হিসেবে র‌্যাব যাত্রা শুরুর পর এই প্রথম উপ-পরিচালক পদে ৪৭ এসপিকে একযোগে বদলি করা হলো। নতুন করে এত সংখ্যক পুলিশ সুপারের পদায়নে বাহিনীর ভেতরের ভারসাম্য কিভাবে রক্ষা হবে- সে নিয়ে নতুন হিসাব-নিকাষ সামনে আসে। র‌্যাবে বদলি হওয়া এসপি পদ মর্যাদার কর্মকর্তারা পদায়নের অপেক্ষায় রয়েছেন। জটিলতা না কাটলে তারা মাতৃবাহিনীতে ফিরবেন নাকি অন্যত্র পদায়ন করা হবে- এ নিয়ে এক ধরনের অনিশ্চয়তা বিরাজ করছে। উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে এরই মধ্যে নীতি নির্ধারনী পর্যায়ের সভাও হয়।

র‌্যাব বলছে- হঠাৎ করে ৪৭ এসপিকে র‌্যাবে বদলি করায় পদায়ন নিয়ে জটিলতা দেখা দেয়। এসব কর্মকর্তাকে বিভিন্ন ব্যাটালিয়ন ও উইংয়ে পদায়ন নিয়ে বিপাকে পড়তে হতে হচ্ছে। কারণ এতো সংখ্যক পদ খালি নেই। আর পুলিশ সদরদপ্তরের কর্মকর্তারা বলছেন, কোটা অনুযায়ী ৪৭ জন এসপিকে র‌্যাবে বদলি করা হয়েছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বদলি করেছে। আর পুলিশ সেই আদেশ প্রতিপালন করেছে। ভারসাম্য আনতেই পুলিশ সুপারদের বদলি করা হয় বলে ভাষ্য তাদের।