প্রস্তাবিত ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেট প্রত্যাখ্যান করেছে জাতীয় মুক্তি কাউন্সিল। নেতারা বলেছেন, করোনা অতিমারিতে জনগণের জীবন-জীবিকা রক্ষার কোনো সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা ও পদক্ষেপ এই বাজেটে নেই। জনগণের জীবন-জীবিকার জন্য নয়, ব্যবসায়ীদের খেদমতে সরকার এই বাজেট প্রস্তাব করেছে। জনগণ এই বাজেট মানে না। জনগণের করের টাকা বাজেটের মাধ্যমে লুটেরা ব্যবসায়ী ও দুর্নীতিবাজ আমলাদের পকেট ভরা চলবে না।

শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে প্রস্তাবিত বাজেটের প্রতিবাদে জাতীয় মুক্তি কাউন্সিলের বিক্ষোভ সমাবেশে নেতারা এসব কথা বলেন।

জাতীয় মুক্তি কাউন্সিলের সম্পাদক ফয়জুল হাকিমের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ লেখক শিবিরের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইকবাল, ট্রেড ইউনিয়ন ফেডারেশনের নেতা দেলোয়ার হোসেন, ছাত্র যুব ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক হেমন্ত দাস, ছাত্র ফেডারেশনের সভাপতি মিতু সরকার ও পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের দপ্তর সম্পাদক শুভাশিস চাকমা। সমাবেশ শেষে বিক্ষোভ মিছিল নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

নেতারা বলেন, ২০১৮ সালে এক ধাপ্পাবাজির নির্বাচনে গঠিত সরকার আজ আর জনগণের কাছে জবাবদিহি করতে বাধ্য নয়। এই সরকার হটিয়ে তাই জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রাম বেগবান করতে হবে।

করোনাকালে স্বাস্থ্যখাতে প্রয়োজনীয় বরাদ্দ না দেওয়া ও দরিদ্র জনগণকে রক্ষায় অগ্রাধিকার না দেওয়ার সমালোচনা করে নেতারা আরও বলেন, ইসলাম প্রচারের নামে সারাদেশে ৫৬০টি মসজিদ নির্মাণের ঘোষণা ও ১০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ ধর্মকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ব্যবহারের লক্ষ্যে করা হয়েছে। সরকারের করোনা মোকাবিলা নীতি শিক্ষার্থীদের শিক্ষাজীবন ধ্বংস করে চলেছে।

মন্তব্য করুন