কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলায় নবনির্মিত মডেল মসজিদ ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র উদ্বোধনের পর গতকাল শুক্রবার প্রথম জুমার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ দিন নামাজ আদায় করতে মুসল্লির ঢল নামে। তবে বেশিরভাগ মুসল্লি মাস্ক পরে এলেও জায়গার অভাবে তাদের সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে দেখা যায়নি। দৃষ্টিনন্দন এ মডেল মসজিদ ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে নামাজ আদায় শেষে অনেক মুসল্লিকে সেলফি ও ছবি তুলতে দেখা গেছে।

গতকাল দুপুর সাড়ে ১২টার পর থেকেই উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে নামাজ আদায় করতে মসজিদটিতে উপস্থিত হতে থাকেন মুসল্লিরা। দেখতে দেখতে মসজিদের পুরো অংশ কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায়। নিচতলা ও ওপরের তলায় হাজারো মুসল্লি একসঙ্গে জুমার নামাজ আদায় করেন। নামাজে ইমামতি করেন মডেল মসজিদের পেশ ইমাম মাওলানা মো. সোলায়মান কবির।

খুতবার আগে নবনির্মিত এ মডেল মসজিদ সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দেন কিশোরগঞ্জ-২ (কটিয়াদী-পাকুন্দিয়া) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সোহরাব উদ্দিন, পাকুন্দিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রেনু, ইউএনও (অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত) একেএম লুৎফর রহমান, পাকুন্দিয়া সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ কফিল উদ্দিন, উপজেলা কৃষক লীগের সাবেক সভাপতি বাবুল আহমেদ, সাবেক পৌর কাউন্সিলর তরীকুল ইসলাম আসাদ প্রমুখ। সংক্ষিপ্ত আলোচনায় বক্তারা দৃষ্টিনন্দন ও অত্যাধুনিক সুবিধাসংবলিত পাকুন্দিয়া মডেল মসজিদ ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান। এ সময় তারা প্রধানমন্ত্রীর দীর্ঘায়ু কামনা করেন।

বৃহস্পতিবার গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি পাকুন্দিয়া মডেল মসজিদ ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্রসহ সারাদেশের ৫০টি মডেল মসজিদ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সারাদেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে একসঙ্গে ৫৬০টি মডেল মসজিদ নির্মিত হচ্ছে।

বিষয় : পাকুন্দিয়া মডেল মসজিদ মুসল্লির ঢল

মন্তব্য করুন