ধর্মীয় বক্তা আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনান ও তার সঙ্গীদের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে আদালতের মাধ্যমে তাদের নিজ নিজ পরিবারের জিম্মায় দেওয়া হয়। চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের কোতোয়ালি  আদালতের বিচারক কেএম হাফিজুর রহমান এ নির্দেশ দেন।

শুক্রবার রাত ৯টায় নগরীর সেন্ট্রাল রোডের মেট্রোপলিটন পুলিশ কার্যালয় থেকে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কেএম হাফিজুর রহমানের আদালতে নেওয়া হয় আবু ত্ব-হা, তার গাড়িচালক আমির উদ্দিন ও সফরসঙ্গী আব্দুল মুহিতকে। এরপর আড়াই ঘণ্টা তাদের জবানবন্দি নেন বিচারক। তাদের কেউ অবরুদ্ধ করে রাখেনি প্রমাণিত হওয়ায় পরিবারের জিম্মায় তাদের তুলে দেন আদালত।

রাত পৌনে ১২টায় পরিবারের সঙ্গে বাড়ি ফেরেন ত্ব-হাসহ তার দুই সফরসঙ্গী। ত্ব-হার আইনজীবী সোলায়মান আহমেদ সিদ্দিকীও একই কথা জানিয়েছেন। রংপুর মেট্রোপলিটন কোতোয়ালি থানার ওসি আব্দুর রশিদ বলেন, আমরা আদালতের নজরে সবকিছু এনেছি। আদালত তাদের জবানবন্দি নিয়ে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করেছে।

আদালতপাড়ায় ত্ব-হার সঙ্গে গণমাধ্যমকর্মীরা কথা বলার চেষ্টা করলে কোনো মন্তব্য করেননি তিনি। তবে তার মামা আমিনুল ইসলাম বলেছেন, দেশবাসীর অকুণ্ঠ সমর্থন ও সরকারের আন্তরিকায় আবু ত্ব-হাকে আমরা ফিরে পেয়েছি। এ জন্য সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

এর আগে বিকেলে রংপুর মহানগর পুলিশের উপকমিশনার (অপরাধ) কার্যালয় প্রাঙ্গণে সংবাদ সম্মেলনে উপকমিশনার আবু মারুফ হোসেন বলেন, শুক্রবার দুপুর ২টার দিকে আমরা গোপন সংবাদে জানতে পারি ত্ব-হা মাস্টারপাড়া এলাকায় তার শ্বশুরবাড়িতে অবস্থান করছেন। খবর পেয়ে কোতোয়ালি থানা পুলিশ মাস্টারপাড়ায় গিয়ে ত্ব-হাকে মহানগর পুলিশের সেন্ট্রাল রোডের কার্যালয়ে হেফাজতে নেয়। গাড়িচালক আমির উদ্দিন ও আরেক সঙ্গী মুহিতকেও রংপুরে তাদের বাসা থেকে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়।