করোনাকালে হাইকোর্ট বিভাগের আরও অধিক সংখ্যক বেঞ্চে বিচারকাজ শুরু করার বিষয়ে সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের আহ্বান নাকচ করে দিয়েছেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ। 

মঙ্গলবার আপিল বিভাগের ভার্চুয়াল শুনানিতে প্রধান বিচারপতি এই মন্তব্য করেন। 

এদিন সকালে শুনানির শুরুতেই সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল হাইকোর্ট বিভাগের অধিক সংখ্যক বেঞ্চ খুলে দেওয়ার কথা বলেন। 

তখন প্রধান বিচারপতি তাকে থামিয়ে দিয়ে বলেন, ‘দেশের অবস্থা খুব খারাপ।’ 

এ পর্যায়ে রুহুল কুদ্দুস কাজল বলেন, ‘মাই লর্ড সেটা তো জানি। আমি অন্য একটা বিষয়েও বলতে চাই। লকডাউন ঘোষণার পূর্বে দেওয়া হাইকোর্টের আদেশগুলো পাঠানো বা কমিউনিকেট করার ব্যবস্থা করুন। অন্যটি হলো, সুপ্রিম কোর্টের করোনা টেস্টের বুথটি খোলা রেখে আইনজীবীদের টেস্টের সুযোগ করে দিন ‘।

তখন প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘আমি তো বাইরের লোক আসতে দিতে চাই না।’

এ সময় আপিল বিভাগের অপর বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী বলেন, ‘করোনা টেস্ট তো হচ্ছে।’

বিচারপতি ওবায়দুল হাসান বলেন, ‘বারের মেম্বররা কি আসেন?’

প্রধান বিচারপতি বলেন, আচ্ছা আমরা এটা বুঝে বলব, এটা করলে অনেক লোক চলে আসবেন। আইনজীবীরাও তো এফেক্টেড (সংক্রমিত) হচ্ছেন।’

এ সময় প্রধান বিচারপতি অ্যাটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিনকে উদ্দেশ করে বলেন, ‘আপনি বঙ্গবন্ধু হাসপাতালে (শাহবাগ)  দেখেন আইনজীবীদের জন্য আলাদা একটি বুথের ব্যবস্থা করা যায় কি না।’

তখন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন বলেন, ‘সেখানে সম্ভব হবে না।’

পরে প্রধান বিচারপতি সুপ্রিম কোর্টের করোনা টেস্ট বুথে আইনজীবীদের আইডি কার্ড দেখে করোনা টেস্টের বিষয়ে সম্মতি দেন।