প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে লড়াই করাই তারুণ্যের ধর্ম। তা আবারও প্রমাণ করল ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সুর সম্রাট ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ ব্রিগেডের তরুণ কর্মীরা। ফোন পেলেই জীবনের মায়া তুচ্ছ করে অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে বিপন্ন করোনা রোগীদের পাশে দাঁড়িয়ে দৃঢ়ভাবেই তা জানান দিচ্ছেন তারা।

বিপন্ন মানবতার পাশে দাঁড়াতে মানবিক ও সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে মাত্র একটি অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে তারা কাজ শুরু করলেও এখন তাদের কাজে অনেকেই নানাভাবে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিচ্ছেন। এই ক'দিনে তারা ১০টি সিলিন্ডার জোগাড় করে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। শহরের সঙ্গে গ্রামেও রোগীর পাশে দাঁড়াচ্ছেন। পাশাপাশি করোনার টিকার গণনিবন্ধন কার্যক্রমও চালিয়ে যাচ্ছেন। এই সংগঠন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে পিসিআর ল্যাব স্থাপন, করোনা রোগীদের জন্য আইসিইউ বেড ও সেন্ট্রাল অক্সিজেন ইউনিট স্থাপনসহ আইসোলেশন ওয়ার্ডের শয্যাসংখ্যা বৃদ্ধির জন্যও রাজপথে দাঁড়িয়ে জনমত সৃষ্টিতে সক্রিয় রয়েছে।

ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ ব্রিগেডের অন্যতম সদস্য ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার প্রকৌশল বিভাগের শিক্ষার্থী ও প্রতিশ্রুতিশীল বিতার্কিক মহুয়ী শারদ জানান, মৌলিক অধিকারের দিক থেকে দেশে বৈষম্য প্রকট। করোনা পরিস্থিতিতে এ বৈষম্য আরও তীব্র হয়েছে। ফলে অনেক করোনা রোগীই চিকিৎসাবঞ্চিত হচ্ছেন। তাই আদর্শিক, মানবিক ও সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকেই তাদের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে ব্রিগেড।

বাংলাদেশ ছাত্রমৈত্রীর জেলা শাখার সভাপতি ফাহিম মুনতাসির জানান, নানা সীমাবদ্ধতার মধ্যে আমাদের কাজ চালাতে হচ্ছে। সহযোগিতা পেলে আরও বেশি মানুষকে সেবা দিতে পারব।

ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ ব্রিগেডের আহ্বায়ক ও জেলা যুবমৈত্রীর আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট নাসির মিয়া জানান, আমাদের এ কার্যক্রমে শুভাকাঙ্ক্ষী মহলের সাড়া পাচ্ছি। তরুণ বন্ধুদের সুরক্ষার বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে আমরা জ্যেষ্ঠরা সার্বক্ষণিক তাদের সঙ্গে থাকছি।

ব্রিগেডের কর্মকাণ্ডের সঙ্গে সংশ্নিষ্ট রয়েছেন জেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি অ্যাডভোকেট কাজী মাসুদ আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক আবু সাঈদ খান, জেলা যুবমৈত্রীর যুগ্ম আহ্বায়ক কাজী তানবীর মাহমুদ, সদস্য সচিব ফরহাদুল ইসলাম পারভেজ, বিজয়নগর ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক দীপক চৌধুরী বাপ্পী, জেলা জাতীয় শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম, জেলা যুবমৈত্রীর নেতা শরীফ আহাম্মদ খান প্রমুখ।

ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ ব্রিগেডের সমন্বয়ক ও জেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি কাজী মাসুদ আহমেদ বলেন, এ সংকটময় সময়ে করোনা রোগীদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য পার্টির কেন্দ্র থেকেও নির্দেশনা আছে। গত ১৮ জুলাই থেকে আমাদের ছাত্র-যুব সংগঠনের বন্ধুদের নিয়ে বিপন্ন মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য সাধ্যমতো চেষ্টা করছি।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা বারের প্রবীণ আইনজীবী বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু তাহের বলেন, ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ ব্রিগেডের কার্যক্রম নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়। এ সময়ে তাদের মতো অন্যদেরও এগিয়ে আসা উচিত।