করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতিতে সরকার ঘোষিত বিধিনিষেধ শিথিল হলে ১৬ আগস্ট থেকে হাইকোর্টের সব বেঞ্চ এবং আপিল বিভাগ ভার্চুয়ালি খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সুপ্রিম কোর্টের ফুলকোর্ট সভা। একই সঙ্গে বিধিনিষেধ চলাকালে ৮ আগস্ট থেকে বিচারকাজ পরিচালনার জন্য হাইকোর্টের বেঞ্চ বাড়ানোরও সিদ্ধান্ত হয়। এ সময়ে হাইকোর্টের ৮ থেকে ১০টি ডিভিশন বেঞ্চে বিচারকাজ পরিচালনা করা হবে। একই সময়ে বিচারকাজ চলবে আপিল বিভাগেও।

বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন উচ্চ আদালতের সব বিচারপতির সমন্বয়ে গঠিত ফুলকোর্ট সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। দুই ঘণ্টাব্যাপী এই ফুলকোর্ট সভা ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠিত হয়।

সূত্র জানায়, ফুলকোর্ট সভায় আগাম জামিনের বেঞ্চ খোলা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হয়। তবে অধিকাংশ বিচারপতি করোনা সংক্রমণের এ সময়ে আগাম জামিনের বেঞ্চ চালুর বিপক্ষে মত দেন। আগস্ট মাসের পর করোনা পরিস্থিতি দেখে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে। এ ছাড়া বিধিনিষেধ শিথিল সাপেক্ষে নিম্ন আদালতের বিচারিক কার্যক্রম ধাপে ধাপে বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বৈঠকে। তবে কঠোর বিধিনিষেধ চলাকালে সীমিত পরিসরে নিম্ন আদালতে বিচারকাজ চালু রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে। বৈঠকে প্রায় সব বিচারপতি করোনা সংক্রমণ একেবারে না কমা পর্যন্ত ভার্চুয়ালি আদালত পরিচালনার পক্ষে মত দেন।

সুপ্রিম কোর্টের রুলস অনুযায়ী, ফুলকোর্ট সভায় উপস্থিত বিচারপতিরা উচ্চ ও অধস্তন আদালতের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে থাকেন।