চিত্রনায়িকা পরীমণির পর মাদক মামলায় প্রযোজক নজরুল ইসলাম রাজেরও চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার রাতে পরীমণির পাশাপাশি চলচ্চিত্র প্রযোজক নজরুল ইসলাম রাজ, আশরাফুল ইসলাম ও সবুজ আলীকেও ঢাকা মহানগর মুখ্য হাকিম আদালতে হাজির করে বনানী থানা পুলিশ। 

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন দায়ের করা পৃথক দুটি মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বনানী থানা পুলিশ প্রত্যেকের সাত দিন করে রিমান্ড আবেদন করে। 

পরে তাদের রিমান্ড শুনানির জন্য আবেদন করলে ঢাকার মহানগর হাকিম মামুনুর রশীদ প্রথমে পরীমণি ও তার সহযোগী আশরাফুলের মামলায় শুনানি নেন। দুজনেরই চার দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন তিনি। পরে একই আদালতে নজরুল রাজ ও তার সহযোগী সবুজের রিমান্ড শুনানি হয়। তাদের দুজনেরও চার দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন বিচারক।

পরীমণিকে আটকের পর বুধবার রাতে বনানীর ৭ নম্বর রোডে প্রযোজক নজরুল ইসলাম রাজের বাসায় অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে র‌্যাব। তদন্ত-সংশ্নিষ্ট সূত্র জানায়, পরীমণিকে জিজ্ঞাসাবাদের পর নজরুল ইসলাম রাজের নামটি সামনে আসে। তার সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক পরীমণির। একাধিক সময় ফেসবুক লাইভে কথা বলার সময় রাজ অভিনেত্রীর পাশে ছিলেন। 

নজরুল ইসলাম রাজ সম্পর্কে খন্দকার আল মঈন জানান, রাজ ১৯৮৯ সালে খুলনার একটি মাদ্রাসা থেকে দাখিল পাশ করেন। পরবর্তীতে ঢাকায় তিনি বলেন,এর আগে র্যা বের অভিযানে গ্রেপ্তার হওয়া শরফুল হাসান ওরফে মিশু হাসান ও মো. মাসুদুল ইসলাম ওরফে জিসানের সহযোগিতায় ১০-১২ জনের একটি ‘সিন্ডিকেট’ গড়ে তুলছিলেন রাজ। এই সিন্ডিকেট রাজধানীর বিভিন্ন অভিজাত এলাকায় বিশেষ করে গুলশান,বনানী, বারিধারায় বিভিন্ন এলাকায় পার্টি বা ডিজে পার্টির নামে মাদক সেবনসহ নানা ‘অনৈতিক কর্মকাণ্ডের’ ব্যবস্থা করতেন।

নজরুল রাজের কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে তার কম্পিউটারসহ কিছু ডিভাইস জব্দ করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে পর্ণোগ্রাফি আইনে মামলা দায়ের করা হবে বলে জানিয়েছে র‌্যাব।