সহকারী পরিচালক থেকে পরিচালক, পরে হয়ে গেলেন অভিনেতা। ভিন্নধর্মী অভিনয় দিয়ে জয় করলেন হাজারো ভক্তের মন। তিনি ছোট পর্দার জনপ্রিয় অভিনেতা জিয়াউল হক পলাশ। যিনি 'ব্যাচেলর পয়েন্ট' নাটকে কাবিলা চরিত্রে অভিনয় করে রাতারাতি এই নামে পরিচিত হয়ে ওঠেন। এই নামেই অধিকাংশ নাট্যপ্রেমী তাকে চেনেন। আরেফিন অমির পরিচালনায় শেষ হওয়া ব্যাচেলর পয়েন্ট (সিজন থ্রি) নাটকে তার অভিনীত কাবিলা চরিত্রটি এখনও মানুষের মুখে মুখে। কাবিলা চরিত্রের জনপ্রিয়তার আড়ালে হারাতে বসেছে পলাশের আসল নামটিই। এ ছাড়া একাধিক চরিত্র দিয়েও দর্শক মাতিয়েছেন তিনি।

অভিনয় দিয়ে ব্যাপক দর্শকপ্রিয়তা পেলেও জিয়াউল হক পলাশ কিন্তু ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন পরিচালক হিসেবে। পরিচালনা দিয়েই দর্শকের মনে জায়গা করে নিতে চেয়েছিলেন তিনি। দুই বছর কাজ করেছেন মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর সহকারী পরিচালক হিসেবে। তিন বছর একই কাজ করেছেন ইশতিয়াক আহমেদ রুমেলের সঙ্গে। কিন্তু এই পরিচালক হুট করে হয়ে গেলেন অভিনেতা! একে একে অভিনয় করেছেন 'ব্যাচেলর পয়েন্ট', 'এক্স বয়ফ্রেন্ড', 'এক্স গার্লফ্রেন্ড', 'ব্যাচেলর ঈদ', 'ব্যাচেলর ট্রিপ', 'মি অ্যান্ড ইউ', 'ইনকমপ্লিট', 'মুঠোফোন'সহ অসংখ্য নাটকে। পরিচালনা করেছেন 'ফ্রেন্ড উইথ বেনিফিট' ও 'সারপ্রাইজ'। তবে সবচেয়ে বেশি আলোচনায় এসেছেন 'ব্যাচেলর পয়েন্ট'-এ কাবিলা চরিত্রে অভিনয় করে।

'ব্যাচেলর পয়েন্ট' খ্যাত এই অভিনেতা বলেন, মিডিয়াতে আমার আসা পরিচালক হওয়ার জন্য। ছোটবেলায় নাখালপাড়ায় বড় হয়েছি। ২০০৯ সালে এসএসসিরও আগে থেকে মোস্তফা সরয়ার ফারুকী ভাইকে দেখতাম। তিনি তখন নাখালপাড়ায় '৪২০' নাটকের নিয়মিত শুটিং করতেন। সে নাটকের শুটিং এবং সরয়ার ভাইকে ওভাবে দেখতে দেখতেই পরিচালক হওয়ার স্বপ্ন দেখি।

পলাশ বলেন, তখন ইচ্ছা ছিল ইন্টারমিডিয়েটের পর ফারুকী ভাইয়ের সঙ্গে কাজ করব। পরীক্ষার পর তার সঙ্গে যুক্ত হই। দীর্ঘদিন আমি তার সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ করেছি। এরপর সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ করেছি ইশতিয়াক আহমেদ রুমেল ভাইয়ের সঙ্গে। সে সময় 'কারসাজি' নামে একটি সিরিয়ালে রোমেল ভাই দু-একটি দৃশ্য আমাকে দিয়ে অভিনয় করিয়েছিলেন। সেটা এতটা ফোকাস ছিল না। এরপর নিজেই যখন পরিচালনা করার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি, তখনই পরিচয় হয় কাজল আরেফিন অমির সঙ্গে। অমি তার 'ট্যাটু' নাটকে আমাকে অভিনেতা বানিয়ে দেন। সেখান থেকেই মানুষ অভিনেতা পলাশকে চিনতে শুরু করে। 'ট্যাটু'র সূত্র ধরেই মূলত অভিনেতা পলাশের আজকের অবস্থান।


অভিনয়ে এত জনপ্রিয়তা পেলেও নিজের পরিচালক সত্তাকেও একটু ভোলেননি সময়ের জনপ্রিয় এ অভিনেতা। ২০১৮ সালে তিনি নির্মাণ করেন নিজের পরিচালনায় প্রথম নাটক 'ফ্রেন্ডস উইথ বেনিফিট'। ২০১৯ সালে 'সারপ্রাইজ' এবং ২০২০ সালে 'ঘরে ফেরা' নির্মাণ করেও দর্শকের প্রশংসা কুড়ান। গেল অক্টোবরে শিল্পী জুনায়েদ ইভানের 'নিজের জন্য' নামে একটি মিউজিক ভিডিও পরিচালনা করেছেন পলাশ। পাশাপাশি সাবিলা নূরকে নিয়ে 'অপো' মোবাইলের ওভিসিও নির্মাণ করেছিলেন। পলাশ বলেন, 'অভিনেতা হিসেবে পরিচিতি পেলেও নিজের ভেতর আমি একজন পরিচালক। অভিনেতা হিসেবে অন্য নির্মাতাদের গল্পে মানুষকে আনন্দ দিচ্ছি, মানুষের ভালোবাসা পাচ্ছি। কিন্তু পরিচালনা আমার স্বপ্নের জায়গা। পরিচালক সত্তাটাকে বাঁচিয়ে রাখতেও পরিশ্রম করে যাচ্ছি। অভিনয়ের পর বাকি সময়টা পরিচালনাতেই দিই। গল্পের বই পড়ি, স্ট্ক্রিপ্ট রেডি করি, ফিল্ম নিয়ে স্টাডি করি। নিজের ভাবনাগুলো পরিচালনার মাধ্যমে মানুষকে দেখাতে চাই।'