ঢাকা বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

ফরিদপুরে একমাত্র নারী প্রার্থীসহ ২ জনের প্রার্থিতা বাতিল

ফরিদপুরে একমাত্র নারী প্রার্থীসহ ২ জনের প্রার্থিতা বাতিল

মাহমুদা বেগম কৃক এবং আরিফুর রহমান দোলন

যাকারিয়া ইবনে ইউসুফ, ফরিদপুর থেকে

প্রকাশ: ০৩ ডিসেম্বর ২০২৩ | ১৪:১১

ফরিদপুর জেলার একমাত্র নারী প্রার্থী মহিলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহমুদা বেগম কৃক এবং কৃষক লীগ নেতা আরিফুর রহমান দোলনের প্রার্থিতা বাতিল করেছে রিটার্নিং কর্মকর্তা। রোববার সকালে রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই শেষে তাদের প্রার্থিতা বাতিল করা হয়। 

তবে দুইজন প্রার্থীই অভিযোগ করেছেন, ষড়যন্ত্র করে তাদের নির্বাচন থেকে দূরে রাখার পাঁয়তারা করা হচ্ছে।
 
রিটার্নিং কর্মকর্তা কামরুল আহসান তালুকদার সমকালকে জানান, ফরিদপুর-১ আসনে মোট ৭ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন। এর মধ্যে মনোনয়নপত্রে অসম্পূর্ণ থাকায় মাহমুদা বেগম কৃক এবং আরিফুর রহমান দোলনের প্রার্থিতা বাতিল করা হয়েছে। তবে ৫ থেকে ৯ তারিখের মধ্যে নির্বাচন কমিশনে আপিলের সুযোগ থাকছে।

এ বিষয়ে মহিলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহমুদা বেগম কৃক বলেন, মনোনয়নপত্র বাতিলের ব্যাপারে আমি চিন্তিত নই। আমি নির্বাচনের মাঠে আছি, থাকবো। আমার আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী নানাভাবে আমাকে ভয়-ভীতি দেখাচ্ছে। এটা সেই ষড়যন্ত্রেরই অংশ। আশা করছি- আপিল করলে প্রার্থিতা ফিরে পাবো এবং জনগণকে দেওয়া প্রতিশ্রুতি রক্ষা করব।

আরিফুর রহমান দোলন সমকালকে বলেন, ইতিমধ্যে ফরিদপুর-১ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে। এসব দেখে সরকার দলের হেভিওয়েট প্রার্থীর ঘুম হারাম হয়ে গেছে। নানামুখী ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে প্রার্থিতা বাতিলের চেষ্টা চলছে। এমন ঠুনকো ভুলে প্রার্থিতা বাতিল হতে পারেনা। আমি অবশ্যই নির্বাচন কমিশনে আপিল করব। 

ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই করা হবে ১ থেকে ৪ ডিসেম্বর। মনোনয়ন আপিল ও নিষ্পত্তি ৬ থেকে ১৫ ডিসেম্বর। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ১৭ ডিসেম্বর এবং প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে ১৮ ডিসেম্বর। নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা চলবে ১৮ ডিসেম্বর থেকে ৫ জানুয়ারি সকাল ৮টা পর্যন্ত। ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে ৭ জানুয়ারি।

আরও পড়ুন

×