আগামী অক্টোবরে মাঠে গড়াবে আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সপ্তম আসর। দীর্ঘ পাঁচ বছর পর অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপকে সামনে রেখে অংশগ্রহণকারী দলগুলো ব্যস্ত দ্বিপাক্ষিক টি-টোয়েন্টি সিরিজে। স্বভাবতই মূল উদ্দেশ্য বিশ্বকাপ প্রস্তুতি।

কিন্তু স্পিন সহায়ক মন্থর উইকেটের ফায়দা নিয়ে অস্ট্রেলিয়াকে কুপোকাত করল স্বাগতিকরা। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম ম্যাচও একইভাবে জয় টাইগারদের। কিন্তু ওমানে গিয়ে খেলতে হবে স্পোর্টিং উইকেটে।

বাংলাদেশের কন্ডিশনে, বিশেষত মিরপুরের এই স্পিন পিচে খেলে আদৌ কি বিশ্বকাপের কোন প্রস্তুতি হচ্ছে? সমর্থক থেকে শুরু করে ক্রীড়া বিশ্লেষ্ককরাও পর্যন্ত বাংলাদেশের পিচের সমালোচনা করছেন। ভারতীয় ধারাভাষ্যকার ও ক্রিকেট বিশ্লেষক হার্শা ভোগলেও মিরপুরের পিচ নিয়ে টুইট করেছেন। তার মতে, বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের লো স্কোরিং ম্যাচগুলো খেলে বিশ্বকাপের যথার্থ প্রস্তুতি হবে না।

উইকেট নিয়ে জানতে চাওয়া হলে ব্যাখ্যা দিয়েছেন বিসিবির ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের চেয়ারপার্সন আকরাম খান। তিনি বলেন, 'সমস্যা হচ্ছে একই মাঠে খেলায়। আমরা চেয়েছিলাম দুইটা ভেন্যুতে যাতে খেলা হয়। ওরাই চেয়েছে একটা ভেন্যুতে খেলতে। ওরা এখানেই খেলবে, এখানের বাইরে যাবে না। কিছু দিন আগে অস্ট্রেলিয়া খেলে গেছে, এখন নিউজিল্যান্ড খেলছে। উইকেটেরও তো বিশ্রামের প্রয়োজন আছে। সবকিছু বিবেচনায় রাখতে হবে। আমরা অনুরোধ করেছি আরও ভালো উইকেট রাখার।'