রাজধানীতে সোহাগ পরিবহন নামে একটি বাসে তল্লাশি করে ৬ কেজি ৭২৮ গ্রাম ওজনের ৫৮টি চোরাই স্বর্ণবার জব্দ করেছে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর বিভাগ। জব্দ স্বর্ণবারের বাজার মূল্য প্রায় সাড়ে ৪ কোটি টাকা। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে বাসের ৩ কর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়। 

গ্রেপ্তার তিনজন হলেন-বাসের চালক মো: শাহাদাৎ হোসেন, হেলপার মো: ইব্রাহিম ও সুপারভাইজার মো: তাইফুল ইসলাম।

বুধবার সন্ধায় তাদের বিরুদ্ধে রাজধানীর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থানায় স্বর্ণচোরাচালান আইনে মামলা করা হয়।

পরে রাজধানীর কাকরাইলে শুল্ক্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর কার্যালয়ে সংস্থাটির মহাপরিচালক ড. মো: আবদুর রউফ এর উপস্থিতিতে এ বিষয়টি নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলন করা হয়।

এসময় কর্মকর্তারা জানান, মঙ্গলবার সন্ধায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাজধানীর বিমানবন্দর ট্রাফিক পুলিশ বক্সের সামনে সোহাগ পরিবহনের ঢাকা মেট্রো-ব ১৪৯৫১৪ নম্বর সাতক্ষীরাগামী একটি বাস আটক করা হয়। এসময় মহাপরিচালকের নির্দেশে তাতে তল্লাশী করে চালকের সিটের নিচ থেকে ৫৮টি চোরাই স্বর্ণবার জব্দ করা হয়। যার ওজন ৬ কেজি ৭২৮ গ্রাম। বাজার মুল্য ৪ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। 

শুল্ক গোয়েন্দা কর্মকর্তারা আরও জানান, সোহাগ পরিবহণের ওই বাসটিকেও জব্দ করা হয়েছে। 

এ ব্যপারে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক মো: ইফতেখার আলম ভুঁইয়া সমকালকে জানান, জব্দ স্বর্ণ ঢাকা কাষ্টমস হেফাজতে জমা রাখা হয়। পাচার চক্রটির বিরুদ্ধে বিমানবন্দর থানায় চোলাচালান আইনে মামলা হয়েছে।

সংশ্নিষ্ট গোয়েন্দা সুত্রে জানা গেছে, দুবাই থেকে বিমানে করে অবৈধভাবে স্বর্ণের বারগুলো দেশে আনার পর তা বাসে করে ভারতে পাচারের জন্য সাতক্ষীরা সীমান্তে নিয়ে যাচ্ছিলো তারা। 

এদিকে পুলিশ জানায়, সোহাগ পরিবহণে কোটি টাকার স্বর্ণ পাচারের বিষয়টি গুরুত্বসহকারে দেখা হচ্ছে।