ভোলার দিঘলদীতে দুই বোনের ওপর এসিড নিক্ষেপ ও এসিডে বড় বোন তানজিম আক্তার মালার মৃত্যুর ঘটনায় মহব্বত হাওলাদার অপু নামের এক যুবককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের দুটি ধারায় যুবককে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। বুধবার ভোলার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক নুরুল আলম মোহাম্মদ নিপু এ রায় দেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, সদর উপজেলার দক্ষিণ বালিয়া গ্রামের মহব্বত হাওলাদার অপুর সঙ্গে খুশিয়া গ্রামের হেলাল উদ্দিনের মেয়ে তানজিম আক্তার মালার মনোমালিন্য হয়। এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে ২০১৮ সালের ১৪ মে আসামি অপু মালা ও তার ছোট বোন মারজিয়ার গায়ে এসিড নিক্ষেপ করে। এতে তানজিম আক্তার মালার চোখ, মুখ, গলা, বুকসহ শরীরের বিভিন্ন অংশ ঝলসে যায়। পরে তার মৃত্যু হয়। এ ছাড়া এসিডে মারজিয়ার মাথা, ঘাড়সহ শরীরের বিভিন্ন অংশ ঝলসে যায়। ওই ঘটনায় মালার মা জান্নাতুল ফেরদৌস বাদী হয়ে মামলা করেন।

ঘটনা প্রমাণিত হওয়ায় আসামি অপুকে দোষী সাব্যস্ত করে তানজিম আক্তার মালার মৃত্যুর জন্য নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ২০০-এর ৪(১) ধারায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ৭৫ হাজার টাকা অর্থদণ্ড করা হয়। এ ছাড়া মারজিয়াকে এসিড দগ্ধ করার অপরাধে একই আইনের ৪(২) (খ) ধারা মতে ১৪ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড এবং ২৫ হাজার টাকা অর্থদণ্ড করা হয়। আসামির উভয় সাজা একই সঙ্গে চলবে। অর্থদণ্ডের টাকা ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে দেওয়া হবে।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন পিপি অ্যাডভোকেট হুমায়ুন কবির। রায়ে তানজিম আক্তার মালার বাবা হেলাল উদ্দিন সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।