যথাযথভাবে গঠনতন্ত্র অনুসরণ করে গণতান্ত্রিকভাবে সকলের মতামত নিয়েই রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটি গঠন করা হয়েছে। দলীয় শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে যারা অভিযুক্ত তারা ভিত্তিহীনভাবে অভিযোগ করেছেন।

নুরুল আমিন বিশ্বাসের পরিবারের সদস্য ও তৃণমূল আওয়ামী লীগের ব্যানারে করা সংবাদ  সম্মেলনে আনা অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বালিয়াকান্দি  উপজেলা আওয়ামী লীগ  পাল্টা  সংবাদ সম্মেলন করে একথা জানায়।  রোববার দুপুরে  উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলন হয়।

সংবাদ  সম্মেলনে লিখিত  বক্তব্য পাঠ করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক  শামসুল আলম সুফী।  অন্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হান্নান মাস্টার, সহ সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান  আবুল কালাম আজাদ, সহ সভাপতি নায়েব আলী, ফরিদ হোসেন বাবু, যুগ্ম সম্পাদক হারুন অর রশীদ প্রমুখ।

লিখিত বক্তব্যে সামসুল আলম সুফী বলেন, আলমগীর বিশ্বাস যে অভিযোগ  করেছেন তার বাবা নুরুল আমিন বিশ্বাসের পরিবারের কাউকে পদে রাখা  হয়নি- তা সঠিক নয়। আলমগীর বিশ্বাস বিভিন্ন সময় দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে অভিযুক্ত। তাকে দল থেকে  বহিষ্কার করা হয়েছিল। পরে সাধারণ ক্ষমা করা হয়। দলীয় সিদ্ধান্তের কারণেই তাকে দলীয় কোনো পদে রাখা হয়নি। কিন্তু তার মা খোদেজা বেগম বর্তমান উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে আছেন। তিনি বালিয়াকান্দি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের মহিলা সম্পাদিকা পদে রয়েছেন। এছাড়া তার পরিবারের সদস্য সামসুল আলম মন্টু বালিয়াকান্দি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি। এছাড়া  যাদের নাম উল্লেখ করে ত্যাগী নেতা হিসেবে উপস্থাপন করা  হয়েছে তাদের প্রায় সবাই বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। যেকারণে তাদের কোনো পদে রাখা হয়নি। বিএনপি  থেকে আগত বহরপুরের রেজাউল করিম বিগত নির্বাচনে দলীয়  প্রতীক নৌকা নিয়ে নির্বাচন করে বিজয়ী হন। তিনি দলীয় সকল কর্মকাণ্ডে সক্রিয় অংশগ্রহণ করেন। একারণে তাকে সহ সভাপতি করা হয়েছে।

ইসলামপুরের আহমেদ আলী বিএনপির সাধারণ সর্ম্থক ছিলেন। তাকে বিগত ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়নও দেওয়া হয়েছিল। সামান্য ভোটের ব্যবধানে তিনি পরাজিত হন। যেকারণে তাকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য করা হয়েছে। বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালে জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠান পণ্ড করে দিয়েছিলেন আহমেদ আলী। তারপরও কেন তাকে দলে নেওয়া হয়েছে। সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে বলেন, যখন আহমেদ  আলী আওয়ামী লীগে যোগদান করেন তখন কেউ এসব তথ্য দেয়নি।

বালিয়াকান্দি উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, সম্পূর্ণ দলীয় গঠনতন্ত্র অনুসরণ করে সকলের মতামত নিয়ে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটি গঠন করা হয়েছে। এখানে এমপি বা তার পরিবারের কেউ হস্তক্ষেপ করেনি। ২০১৯ সালের ১৮ ডিসেম্বর কমিটি গঠন হলেও করোনার কারণে কোনো সভা করা হয়নি। গত ১২ সেপ্টেম্বর নবগঠিত কমিটির প্রথম সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জেলার বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।