করোনার কারণে দীর্ঘ দেড় বছর বন্ধের পর বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) স্বাস্থ্যবিধি মেনে সশরীরে স্নাতক পর্যায়ের সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষা শুরু হয়েছে। সোমবার সকাল ১০টায় কৃষি, পশুপালন ও মাৎস্যবিজ্ঞান অনুষদের শেষ বর্ষের শিক্ষার্থীদের ফাইনাল পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় বিভিন্ন অনুষদের পরীক্ষা হলের কক্ষ পরিদর্শন করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. লুৎফুল হাসান, ডিন কাউন্সিলের আহবায়ক অধ্যাপক এ কে ফজলুল হক ভূঁইঞা ও ছাত্রবিষয়ক উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. এ কে এম জাকির হোসেন।

এ দিন পরীক্ষার হলে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি ছিল প্রায় শতভাগ। শিক্ষার্থীকে পরীক্ষা হলে মাস্ক পরে প্রবেশ করানো হয়। যাদের মাস্ক নেই তাদের জন্যও পর্যাপ্ত পরিমাণ মাস্কের ব্যবস্থা রাখা হয়। অন্যদিকে শিক্ষার্থীদের স্যানিটাইজার ব্যবহার করে পরীক্ষা হলে প্রবেশ করানো হয়। স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিক্ষার্থীদের এক সিট পর পর আসনের ব্যবস্থা করা হয়।

পশুপালন অনুষদের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী রেজওয়ানুল ইসলাম রিংকন বলেন, অনিশ্চিত ভবিষ্যতের মধ্যে দিন কাটছিল। দেরিতে হলেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সাহসী পদক্ষেপের কারণে ফাইনাল পরীক্ষা শুরু হয়েছে। কিছুটা হলেও স্বস্তি অনুভব করছি।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. লুৎফুল হাসান বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে আমরা স্নাতক শেষ বর্ষের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা শুরু করতে পেরেছি। সব বর্ষের শিক্ষার্থীদের জন্য ৩ অক্টোবর থেকে হল খুলে দেওয়া হবে। এক্ষেত্রে যারা প্রথম ডোজের টিকা গ্রহণ করেছে তারাই হলে ওঠার সুযোগ পাবে। প্রথম থেকে তৃতীয় বর্ষের পরীক্ষা শুরু হবে আগামী ১৭ অক্টোবর থেকে। 

তিনি বলেন, মাস্টার্স শিক্ষার্থীদেরও সশরীরে পরীক্ষা গ্রহণ করা হচ্ছে। তাদের পরীক্ষা শেষ হলে করোনার গতিবিধি বিবেচনা করে আমরা সশরীরে ক্লাস শুরু করব। বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন কাউন্সিলের আহবায়ক, প্রক্টর এবং ছাত্রবিষয়ক উপদেষ্টাসহ সকলের সহযোগীতায় সকল বিষয় অত্যন্ত সুন্দরভাবে সম্পন্ন করতে পারব বলে আশা করছি।