খুলনা জেলা পরিষদে মফিজুল ইসলাম নামে এক ঠিকাদারকে মারধর করা হয়েছে। 

বুধবার দুপুর ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। বতর্মানে ওই ঠিকাদার খুলনা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

ভুক্তভোগী মফিজুল ইসলাম জানান, কিছুদিন আগে তিনি জেলা পরিষদে ৫০ লাখ টাকা ব্যয়ে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী (হ্যান্ডওয়াশ, স্যানিটাইজার ও মাস্ক) সরবরাহ করেন। সেই কাজের বিল এখনও বকেয়া রয়েছে। বিলের বিষয় নিয়ে কথা বলতে তিনি ও অন্য ঠিকাদার মোহাম্মদ আলী জেলা পরিষদে যান। তখন প্রশাসনিক কর্মকর্তার কক্ষে সুজন নামে আরেক ঠিকাদার বসা ছিলেন। সেখানে তুচ্ছ বিষয় নিয়ে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে সুজন নামের ওই ঠিকাদার তাকে মারধর করেন। এতে তার কপাল ফেটে যায়। চারটি সেলাই লেগেছে। 

বর্তমানে তিনি খুলনা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এ ঘটনায় তিনি মামলা করবেন।

ঠিকাদার মো. সুজনের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে জেলা পরিষদের সচিব বিষুষ্ণপদ পাল বলেন, বিষয়টি শুনেছি, ঘটনার সময় আমি বাইরে ছিলাম। জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান খুলনার বাইরে রয়েছেন। তিনি এলে আমরা প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেব।