মাদক মামলায় হাজিরা দিতে রোববার সকাল ১০টায় আদালতে উপস্থিত হওয়ার কথা ছিল চিত্রনায়িকা পরীমণির। কিন্তু আদালতে নির্দিষ্ট সময়ে হাজির হননি তিনি। আসেন প্রায় তিন ঘন্টা দেরিতে।

দেরি হওয়ায় জন্য নায়িকা পরীমণির প্রতি ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ক্ষোভ ও অসন্তোষ প্রকাশ করেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী (পিপি) আব্দুল্লাহ আবু। পরীমণির দেরি প্রসঙ্গে আদালতে তিনি বলেন, আইন সবার জন্য সমান। প্রত্যেককে আইন মেনে চলতে হবে। আদালতে সঠিক সময়ে হাজির হতে হবে। আদালতের প্রতি সম্মান দেখাতে হবে।

পরীমণির জামিন আবেদনের বিরোধীতা করে তিনি বলেন, পরীমণির কাছ থেকে বিদেশি মদসহ ভয়ংকর রকমের মাদক এলএসডি-আইস পাওয়া গেছে।

পিপির ওই বক্তব্যের পর পরীমণির আইনজীবী নীলাঞ্জনা হাজির হতে দেরি হওয়ার জন্য আদালত বলেন, ‘স্যার, এ রকম ভুল আর হবে না।’

পরে আদালতে পরীমণির পক্ষে  শুনানিতে আইনজীবী নীলাঞ্জনা রিফাত বলেন, তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়া পর্যন্ত এই মামলায় পরীমনির জামিন মঞ্জুর করেছিলেন আদালত। তিনি জামিনের কোনো অপব্যবহার করেননি। তাই আবার তার জামিন মঞ্জুর করা হোক। 

আদালতে উভয় পক্ষের শুনানি শেষে মাদক মামলায় পরীমণিকে স্থায়ী জামিন দেন। শুনানি নিয়ে ঢাকা মহানগর হাকিম সত্যব্রত শিকদার স্থায়ী জামিন মঞ্জুর করেন।

সিআইডির পুলিশ পরিদর্শক কাজী মোস্তফা কামাল গত ৪ অক্টোবর এই মামলায় আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। চার্জশিটে পরীমণির সঙ্গে সহযোগী হিসেবে আশরাফুল ইসলাম দিপু ও কবির হাওলাদারকে আসামি করা হয়।

এর আগে গত ২৮ সেপ্টেম্বর এ মামলায় পরীমণির গাড়িসহ জব্দ করা ১৬ আলামত ফেরত দেওয়ার আদেশ দেন আদালত।