উনিশ মাস পর রোববার খুলছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) আবাসিক হলগুলো। সকাল ১০টা থেকে শিক্ষার্থীরা হলে উঠতে পারবেন। তাদের স্বাগত জানাতে হল প্রাধ্যক্ষ পরিষদ নানা প্রস্তুতি নিয়েছে। 

শিক্ষার্থীদের হাত স্যানিটাইজ করার জন্য হলের সামনে বসানো হয়েছে বেসিন। হলগুলো রং করা হয়েছে। আশপাশে পরিস্কার-পরিচ্ছন্নও করা হয়েছে। তবে ১৭টি আবাসিক হলের অধিকাংশেরই সংস্কার শেষ হয়নি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দপ্তর প্রশাসক ড. আজিজুর রহমান জানান, হলে ওঠার জন্য শিক্ষার্থীদের অন্তত এক ডোজ করোনার টিকা নিতে হবে। প্রবেশপথে টিকা নেওয়ার প্রমাণপত্র ও হল কার্ড দেখাতে হবে।

শিক্ষার্থীদের হলে ওঠার জন্য মাস্ক ব্যবহারসহ অবশ্যপালনীয় ১০টি নির্দেশনা দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। করোনা সংক্রমণ রোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পাশাপাশি ডেঙ্গু প্রতিরোধে সবাইকে আবশ্যিকভাবে মশারি টানিয়ে ঘুমাতে হবে।

রাবির হল খোলার আগে শেষ মুহূর্তে চলছে পরিছন্নতার কাজ। ছবি: সমকাল

এদিকে, দীর্ঘ ছুটিতে নষ্ট হয়ে গেছে হলগুলোর দেয়ালের রং। অকেজো হয়ে পড়েছে পানি ও বিদ্যুতের লাইন। সংস্কারকাজের জন্য দরপত্র আহ্বানের কথা থাকলেও এখনও অধিকাংশ হলে তা করা হয়নি। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের হল প্রাধ্যক্ষ পরিষদ জানিয়েছে, হল খোলার প্রস্তুতি সম্পন্ন। পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা, দেয়ালে নতুন রং করাসহ প্রায় সব কাজ সম্পন্ন। কক্ষের ভেতরের কাজ ও বড় বাজেটের কাজে দরপত্রের প্রক্রিয়া চলমান।

হল প্রাধ্যক্ষ পরিষদের আহ্বায়ক অধ্যাপক জুলকার নায়েন বলেন, হলের প্রাধ্যক্ষরা যা যা চাহিদা পাঠিয়েছেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন থেকে সেসব কাজের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান প্রকৌশলী আবুল কালাম আজাদ বলেন, হলের বিভিন্ন চাহিদার বিষয়ে দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে। দ্রুতই সব চাহিদা পূরণ করা হবে।

সার্বিক বিষয়ে উপ-উপাচার্য অধ্যাপক সুলতান-উল ইসলাম টিপু বলেন, শিক্ষার্থীদের বরণ করে নিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন শতভাগ প্রস্তুত। যারা টিকা পায়নি, তাদের জন্য টিকার ব্যবস্থা করা হয়েছে। সকাল ১০টা থেকে শিক্ষার্থীরা হলে প্রবেশ করবে। তার আগে সাড়ে ৯টা থেকে তাদের করোনার টিকা দেওয়া শুরু হবে।

গত বছরের ১৮ মার্চ থেকে বন্ধ রয়েছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সব হল। একই দিন থেকে ক্লাসও বন্ধ রয়েছে। আগামী ২০ অক্টোবর থেকে ক্লাসের কার্যক্রম শুরু হবে।