টুর্নামেন্টের শেষের দিকে এসে কলকাতা নাইট রাইডার্সে টানা ম্যাচ খেলেছেন সাকিব আল হাসান। শুক্রবার রাতেই ফাইনাল ম্যাচে ছিলেন তিনি। টুর্নামেন্ট শেষ করে সেই কাকডাকা ভোরে দুবাই থেকে গাড়িতে করে এসেছেন ওমানে। বায়োসিকিউর বাবল, খেলা ও ভ্রমণ মিলে স্বাভাবিকভাবেই কিছুটা ক্লান্ত সাকিব। গতকাল ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহও বললেন, 'সাকিব কিছুটা ক্লান্ত।' যাকে ক্লান্ত বলা হচ্ছে, বাঁহাতি সে অলরাউন্ডারকে সেন্টার উইকেটের নেটে লম্বা সময় ব্যাট করতে দেখে একবারও মনে হয়নি ক্লান্তি প্রভাব ফেলতে পেরেছে তার শরীর-মনে। বরং তার শরীরী ভাষা বলে দিচ্ছিল, বড় মঞ্চে বড় কিছু করার জন্য তৈরি হয়েই এসেছেন আইপিএল থেকে।

সাকিবের নেট সেশনে মিডিয়ার ফোকাস তো থাকেই। গতকাল কোচিং স্টাফের সদস্যদের ফোকাসও ছিল সাকিবের ওপর। কারণ টি২০ বিশ্বকাপে সব্যসাচী এ ক্রিকেটারের ভালো খেলার ওপর অনেক কিছুই নির্ভর করে। একা হাতে ম্যাচ জেতাতে পারেন তিনি। স্বাভাবিকভাবেই টুর্নামেন্টজুড়েই সাকিবের ওপর দৃষ্টি থাকবে ক্রিকেট বিশ্বের। একা সাকিব নন, মুস্তাফিজুর রহমানও হতে পারেন টাইগার স্কোয়াডের বিশ্বকাপ তারকা। টি২০ সংস্করণে দেশের সেরা পেস বোলার তিনি। ডেথ ওভার বোলার হিসেবে বেশ সমাদৃত। অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহর তুরুপের তাস বাঁহাতি এ পেসার। বাজির ঘোড়া হতে পারেন আরেক বাঁহাতি পেসার শরিফুল ইসলাম। অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপজয়ী দলের এই সদস্য আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পরীক্ষিত পারফরমার। অভিষেকের পর থেকে ধারাবাহিক ভালো খেলছেন তিনি। তবে কন্ডিশন ও দল সমন্বয়ের প্রয়োজনে নিয়মিত ম্যাচ নাও পেতে পারেন টাইগার এ ফাস্ট বোলার।

আল আমেরাতের উইকেট রানের জন্য ভালো। ওমান 'এ' দলের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচের অভিজ্ঞতা থেকে মাহমুদউল্লাহ জানান, নিউজিল্যান্ড সিরিজের মতো একাদশ সাজানো হতে পারে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচে। ইউরোপের দল স্কটল্যান্ডের ব্যাটাররা স্পিন বলে অতটা ভালো খেলার কথা নয়। সেদিক থেকে বোলিং লাইনআপ করা হতে পারে তিন স্পিনার রেখে। ব্যাটিং লাইনআপ মোটামুটি পরীক্ষিত। তিন সিনিয়র সাকিব, মুশফিক, মাহমুদউল্লাকে রেখে লাইনআপ সাজাবে টিম ম্যানেজমেন্ট।

একাদশ যেমনই হোক দল হিসেবে ভালো খেলা জরুরি। সতীর্থদের কাছে বরাবরই মাহমুদউল্লাহর চাওয়া সমন্বিত পারফরম্যান্স। টিম বাংলাদেশ হয়ে ওঠার মিশন শুরু হচ্ছে আজ থেকে। যে মিশনে জয়ে শুরু জরুরি। অভিজ্ঞতা আর আত্মবিশ্বাস কাজে লাগিয়ে শুভসূচনা করতে চান টাইগার দলপতি। যদিও আইসিসির এই সহযোগী দেশের সঙ্গে তেমন ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা নেই টাইগারদের। টি২০-তে মুখোমুখি হয়েছিল একবারই। ২০১২ সালে খেলা একমাত্র সে ম্যাচে জিতেছিল স্কটিশরাই। মাশরাফিদের বেধড়ক পিটিয়ে সেঞ্চুরি করেছিলেন ওপেনিং ব্যাটসম্যান রিচি বেরিংটন। ৩৪ বছর বয়সী রিচি খেলতে পারেন আজকের ম্যাচে। ডানহাতি এ ব্যাসটম্যান ভালোই ছন্দে আছেন। প্রস্তুতি ম্যাচগুলোতে রান পেয়েছেন নিয়মিত। চাপমুক্ত খেলতে হলে তাকে সবার আগে ফেরাতে হবে ড্রেসিংরুমে। রিচির মতো আরও বেশ কয়েকজন ব্যাটসম্যান রয়েছেন স্কটল্যান্ড স্কোয়াডে। পাওয়ার ক্রিকেট খেলে অভ্যস্ত তারা।

গত কয়েকদিন এ নিয়ে টিম মিটিংয়ে ভালোই বিশ্লেষণ হয়েছে বলে জানান মাহমুদউল্লাহ, 'আমরা দলের ভেতরে সব বিষয় নিয়ে কথা বলেছি। জিততে হলে মন খুলে খেলতে হবে। আমরা ভালো খেলব আশা করি। সব ধরনের প্রস্তুতি সেরে ফেলা হয়েছে। শুরুটা জয় দিয়েই করতে চাই।'