প্রথমবারের মতো গুচ্ছ পদ্ধতিতে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (যবিপ্রবি) স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

রোববার প্রথম দিনে ‘এ’ ইউনিটে যবিপ্রবিতে আসন পড়ে ৬ হাজার শিক্ষার্থীর। এরমধ্যে যবিপ্রবিতে ৯০ শতাংশের বেশি শিক্ষার্থী উপস্থিত হয়েছেন বলে পরীক্ষা সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।   

যবিপ্রবির জিএসটিভুক্ত সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার আহ্বায়ক কমিটি থেকে জানানো হয়েছে, যবিপ্রবির পাঁচটি ভবনে গুচ্ছ পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষায় ‘এ’ ইউনিটভুক্ত শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শিক্ষার্থীদের সুবিধার্থে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন স্থানে ডিজিটাল ব্যানারে রোল নম্বর, কেন্দ্র এবং ভবন নির্দেশক দেওয়া হয়। 

একইসঙ্গে শিক্ষার্থীদের সহায়তা দেওয়ার জন্য সব ভবনের প্রবেশমুখে প্রক্টরিয়াল, ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা দপ্তরের সদস্য, বিএনসিসিসহ অন্যান্য স্বেচ্ছাসেবকরা দায়িত্বে ছিলেন।

পরীক্ষা শুরু হওয়ার যবিপ্রবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেনের সঙ্গে পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মো. আব্দুল মজিদ, পরীক্ষার কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মো. জিয়াউল আমিন, স্টিয়ারিং কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মো. ইকবাল কবীর জাহিদ, যশোরের জেলা প্রশাসক মো. তমিজুল ইসলাম খান, যশোরের পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ার্দার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (খ-সার্কেল) বেলাল হোসাইনসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন স্তরের দায়িত্বরত ব্যক্তিরা। 

যবিপ্রবির উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘সারা বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত গুচ্ছ পদ্ধতির পরীক্ষাটি অত্যন্ত সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয়েছে।  শিক্ষার্থীদের দুর্দশা লাঘবে এ পরীক্ষা পদ্ধতি একটি সফল পদ্ধতি। আমার বিশ্বাস, সব বিশ্ববিদ্যালয় যদি একসাথে এ ধরণের পদ্ধতিতে পরীক্ষা গ্রহণ করা হয়, তাহলে শিক্ষার্থীদের জন্য আরও ভালো হবে। যেসব বিশ্ববিদ্যালয় এখনও এ পদ্ধতিতে আসেনি আশা করি তারা আগামীতে গুচ্ছ পদ্ধতিতে বা একসাথে পরীক্ষা গ্রহণ করবে।’

আগামী ২৪ অক্টোবর ‘বি’ ইউনিটে মানবিক ও ১ নভেম্বর ‘সি’ ইউনিটে বাণিজ্য বিভাগ থেকে পাশ করা শিক্ষার্থীদের দুপুর ১২টা-১টা পর্যন্ত ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

উল্লেখ্য, জিএসটিভুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ভর্তি পরীক্ষা, ফলাফলসহ অন্যান্য সব তথ্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে।