বাংলাদেশ ক্রিকেটের পোস্টারবয় সাকিব আল হাসান। আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে অনেক কিছু অর্জন করেছেন সাকিব। এবার তার অর্জনে যোগ হলো বেশ কয়েকটি সাফল্য। যেখানে সবাইকে ছাপিয়ে শীর্ষে সাকিব আল হাসান। এমন অর্জনে বেছে নিলেন বিশ্বকাপের মতো মেগা মঞ্চ।

রোববার স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে ১০৬ উইকেট শিকার করে মালিঙ্গার ঠিক পরেই ছিলেন সাকিব। এদিন আমিরাতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের উদ্বোধনী দিনের দ্বিতীয় খেলায় স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে পরপর দুই উইকেট শিকারের মধ্য দিয়ে মালিঙ্গাকে ছাড়িয়ে বিশ্বরেকর্ড নিজের করে নেন বিশ্বের অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। 

নিউজিল্যান্ড সিরিজ থেকেই এ রেকর্ডের খুব কাছে ছিলেন সাকিব, অবশেষে সেটা নিজের করে নিতে পারলেন। এই তালিকায় ৯৯ উইকেট নিয়ে টিম সাউদি রয়েছেন তিন নম্বরে। এছাড়া অবসরে যাওয়া শহীদ আফ্রিদি ৯৮ ও রশিদ খান ৯৫ উইকেট পেয়েছেন।

৮৪ ম্যাচ খেলে ১০৭ উইকেট নিয়ে শেষ হয়েছে মালিঙ্গার ক্যারিয়ার। আজ প্রথম উইকেট নেওয়ার সময় লঙ্কান কিংবদন্তিকে ছুঁয়ে ফেলেন সাকিব। পরে স্কটিশ ব্যাটসম্যান মাইকেল লিস্ককে ফিরিয়ে এককভাবে সর্বোচ্চ উইকেট সংগ্রাহক বনে যান সাকিব আল হাসান।

পাশাপাশি আরও কিছু কীর্তিও গড়লেন সাকিব। তিন সংস্করণ মিলিয়ে সাকিবের উইকেট এখন ৬০০টি। ২৩তম বোলার আর দ্বিতীয় বাঁহাতি স্পিনার হিসেবে এই অর্জনে নাম লেখালেন সাকিব।

এমন অর্জনের দিনে আরও এক জায়গায় অনন্য সাকিব। তিন সংস্করণ মিলিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ইতিহাসের ব্যাট হাতে ১২ হাজার রান আর ৬০০ উইকেট আছে শুধুই সাকিবের।

৬০০ উইকেটের পাশাপাশি সাকিবের পর সবচেয়ে বেশি রান এখন ভারতীয় কিংবদন্তি কপিল দেবের। ৬৮৭ উইকেটের সঙ্গে তার রান ৯ হাজার ৩১ রান নিয়ে অবসরে গেছেন তিনি।