কুমিল্লার নানুয়ারদীঘির পাড়ের মন্দিরে পবিত্র কোরআন রাখার ঘটনায় কক্সবাজারে গ্রেপ্তার হওয়া ইকবাল হোসেনকে কড়া পুলিশ পাহারায় কুমিল্লায় আনা হচ্ছে। বৃহস্পতিবার রাত ১১টার দিকে জেলা পুলিশের একটি টিম ইকবালকে কুমিল্লায় আনতে রওনা দিয়ে ভোরে কক্সবাজার পৌঁছায়। কিছু আনুষ্ঠানিকতা শেষে তাকে নিয়ে শুক্রবার সকাল পৌনে ৭টার দিকে কুমিল্লায় রওনা হয় পুলিশ। এ টিমের নেতৃত্ব দিচ্ছেন কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. সোহান সরকার।

নানুয়ারদিঘির পাড়ের অস্থায়ী পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন শরীফ রাখার ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত ইকবালকে ঘটনার পর থেকে হন্যে হয়ে খুঁজছিল পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা। বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের সুগন্ধা পয়েন্ট থেকে তাকে আটক করে পুলিশ। এ সময় তার চোখে চশমা ছিল। 

কুমিল্লার সহকারী পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. সোহান সরকার বলেন, 'আমরা যে ইকবালকে খুঁজছিলাম সে এই ইকবালই। গ্রেপ্তার এড়াতে পোশাক পাল্টে সে কক্সবাজার এসেছিল।' ইকবালকে নিয়ে তাদের কুমিল্লায় পৌঁছাতে দুপুর হতে পারে বলে জানান এ পুলিশ কর্মকর্তা।

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে ইকবাল

এর আগে শুক্রবার সকালে ইকবাল হোসেনকে কুমিল্লা থেকে আসা পুলিশের একটি দলের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এরপর পুলিশের দলটি সকালেই কুমিল্লার পথে রওয়ানা হয়ে যায়। 

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিকুল ইসলাম জানিয়েছেন, সৈকতের সুগন্ধা পয়েন্ট থেকে ইকবাল নামের একজনকে রাতে আটক করা হয়। তার বয়স আনুমানিক ৩৫ বছর। আটক ব্যক্তি সৈকতে সন্দেহজনকভাবে ঘোরাফেরা করছিল। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে পুলিশ সৈকত থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তাকে কুমিল্লার পূজা মণ্ডপের ঘটনার সাথে জড়িত ইকবাল বলে শনাক্ত করা হয়। তাকে শুক্রবার সকালে কুমিল্লা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

এদিকে কুমিল্লার পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ সমকালকে বলেন, 'ইকবালকে আনা হচ্ছে, তাকে ঘটনার বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।' কখন সাংবাদিক সম্মেলন কিংবা তাকে আদালতে নাকি ঢাকায় নেওয়া হবে-  এসব প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, 'ওয়েট। সব জানতে পারবেন।'

গত ১৩ অক্টোবর ভোররাতে নগরীর নানুয়াদীঘির পাড় এলাকার একটি পূজা মণ্ডপে কোরআন রেখেছিল ইকবাল হোসেন। এ ঘটনায় কুমিল্লা নগরীসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে। পরে সিসিটিভির ফুটেজে ধরা পড়ে ইকবালই পাশের দারোগাবাড়ি মাজারের মসজিদ থেকে কোরআন নিয়ে গভীররাতে মণ্ডপে রাখেন।