চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে ২০০৩ সালে চাঞ্চল্যকর ট্রিপল মার্ডার মামলায় হাইকোর্টে খালাস পাওয়া আট আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আপিল বিভাগ। বিচারিক আদালত এই আট আসামির মধ্যে ৫ জনকে মৃত্যুদণ্ড এবং তিনজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিলেও হাইকোর্টে তারা সবাই খালাস পেয়েছিলেন।

তবে মঙ্গলবার রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের শুনানি নিয়ে আপিল বিভাগের চূড়ান্ত রায়ে এই আট আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চ মঙ্গলবার এই রায় দেন।

বিচারিক আদালতে মৃত্যুদণ্ড থেকে হাইকোর্টে খালাস, অতপর আপিল বিভাগে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- মোবারক, ওসমান, মাইনুদ্দিন, ইমানউদ্দিন ও লোকমান। অন্যদিকে বিচারিক আদালতে যাবজ্জীবন পাওয়া তিন আসাসির সাজা আপিল বিভাগে ফের বহাল রাখা হয়েছে। তারা হলেন- জামাল ওরফে ক্যারাটি জামাল, আবুল কালাম ও আবু রাশেদ। এই আটজনই হাইকোর্টে খালাস পেয়েছিলেন। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিৎ দেবনাথ। আসামিদের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী আশরাফ উজ জামান খান ও শিরিন আফরোজ।

মামলার বিবরণে জানা যায়, চট্টগ্রামের হাটাহাজারীতে ২০০৩ সালের ২৬  মে প্রকাশ্য দিবালোকে আবুল কাশেম, আবুল বশর ও বাদশা আলম নামে ৩ সহোদরকে কুপিয়ে ও গুলি কের হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় নিহতের ভাই কাজী মফজল মাস্টার ২২ জনকে আসামি করে হাটহাজারী থানায় মামলা করেন। এরই ধারাবাহিকতায় অভিযোগপত্রের ভিত্তিতে বিচারিক আদালত ৫ জনকে মত্যৃদণ্ড এবং আটজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন। এরপর মামলাটি হাইকোর্টে এলে সব আসামিকেই খালাস দেওয়া হয়। পরে হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে রাষ্ট্রপক্ষ। মঙ্গলবার ওই আপিলের শুনানি নিয়ে চূড়ান্ত রায় দেন আপিল বিভাগ।