প্রখ্যাত আইনজীবী ও রাজনীতিবিদ অ্যাডভোকেট সিরাজুল হকের ১৯তম মৃত্যুবার্ষিকী বৃহস্পতিবার। এ উপলক্ষে নানা কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। ২০০২ সালের ২৮ অক্টোবর রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।

আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য, বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতা হত্যা মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান কৌঁসুলি সিরাজুল হকের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বৃহস্পতিবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা ও  আখাউড়ায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের পক্ষ থেকে মিলাদ-মাহফিল ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে।

বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ এই সহচর ও মুক্তিযুদ্ধের বিশিষ্ট সংগঠক সিরাজুল হক ১৯৭০ সালে কসবা-বুড়িচং নির্বাচনী এলাকা থেকে পাকিস্তান জাতীয় পরিষদ সদস্য এবং ১৯৭৩ সালের সাধারণ নির্বাচনে কসবা-আখাউড়া এলাকা থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। সংবিধান প্রণয়নের উদ্দেশ্যে ১৯৭২ সালের ১১ এপ্রিল ড. কামাল হোসেনকে সভাপতি করে গঠন করা ৩৪ সদস্যের কমিটির সদস্য ছিলেন তিনি। সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতির দায়িত্বও পালন করেন তিনি।

১৯২৫ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবার পানিয়ারূপ গ্রামে জন্ম নেওয়া বিশিষ্ট এ আইনজীবী বেগম জাহানারা হককে বিয়ে করেন। তিনি ছিলেন দুই ছেলে ও এক মেয়ের বাবা। বর্তমান আইনমন্ত্রী আনিসুল হক তার ছেলে। তার অন্য ছেলের নাম আরিফুল হক রনি এবং একমাত্র মেয়ে সায়মা ইসলাম।