রাজধানীর রিজেন্ট হাসপাতালের কেলেঙ্কারির ঘটনায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালকসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে মামলার অভিযোগপত্র (চার্জশিট) গ্রহণের বিষয়ে ২৩ জানুয়ারি আদেশের দিন ধার্য করেছেন আদালত। 

ঢাকা মহানগর জ্যেষ্ঠ বিশেষ জজ কেএম ইমরুল কায়েশ মঙ্গলবার এ দিন নির্ধারণ করেন।

এ মামলার আসামিরা হলেন- স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক ডা. আবুল কালাম আজাদ, রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাহেদ, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক পরিচালক ডা. আমিনুল হাসান, উপ-পরিচালক ডা. ইউনুস আলী, সহকারী পরিচালক ডা. শফিউর রহমান ও গবেষণা কর্মকর্তা ডা. দিদারুল ইসলাম। আসামিদের মধ্যে সাহেদ কারাগারে থাকলেও অন্যরা জামিনে আছেন।

গত ৭ অক্টোবর আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করেন আবুল কালাম আজাদ। আদালত তাকে ২ নভেম্বর পর্যন্ত অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দেন।  মঙ্গলবার তার আইনজীবীর মাধ্যমে জামিনের মেয়াদ বাড়ানোর আবেদন করলে ২৩ জানুয়ারি পর্যন্ত আদালত তা মঞ্জুর করেন।

করোনা রোগীর নমুনা পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্ট দিয়ে সরকারি অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে গত ৩০ সেপ্টেম্বর আবুল কালাম আজাদসহ ৬ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করেন মামলার দুদকের তদন্ত কর্মকর্তা। অভিযোগপত্রে আসামিদের বিরুদ্ধে লাইসেন্স নবায়নবিহীন বন্ধ রিজেন্ট হাসপাতালকে ডেডিকেটেড কভিড হাসপাতালে রূপান্তর, সমঝোতা স্মারক সম্পাদন এবং নমুনা পরীক্ষা বাবদ ও করোনা চিকিৎসায় খরচ বাবদ তিন কোটি ৩৪ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়।

গত বছরের ২৩ সেপ্টেম্বর দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয় ঢাকা-১-এ ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলাটি করেন কর্মকর্তা ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী। সেখানে আবুল কালাম আজাদকে আসামি করা হয়নি। তবে তদন্তে নাম আসায় চার্জশিটে তার নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়।