বিদায়বেলায় হেমন্ত মাস যেন প্রকৃতির সঙ্গে লুকোচুরি খেলছে। সপ্তাহের প্রথম কর্মদিবস রোববারের সকালটা ছিল মেঘে ঢাকা। মাঝখানে একটুখানি রোদ্দুর। তারপর আবার আকাশটা মেঘলা। থেমে থেমে ফোঁটা ফোঁটা বৃষ্টি ঝরেছে দিনভর। এর সঙ্গে ছিল হিম হিম ভাব। এমন আবহাওয়ায় বিড়ম্বনায় পড়ে এসএসসি পরীক্ষার্থীরা। রাস্তায় কাদা জমে যাওয়ায় ভোগান্তি ছিল অফিসগামী মানুষেরও।

আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, থেমে থেমে বৃষ্টির কারণ লঘুচাপ। বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট এই লঘুচাপের গন্তব্য এখন তামিলনাড়ুর দিকে। রোদ-ঝলমলে আকাশের জন্য  মঙ্গলবার পর্যন্ত অপেক্ষা করা ছাড়া উপায় নেই। সোমবারও বরিশাল, ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের দুয়েক জায়গায় হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি হতে পারে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ বজলুর রহমান বলেন, ‘দক্ষিণ আন্দামান ও তৎসংলগ্ন এলাকায় সৃষ্ট লঘুচাপটি বর্তমানে মধ্য আন্দামান সাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। বঙ্গোপসাগর থেকে আগত লঘুচাপটির বর্ধিতাংশ বর্তমানে উত্তর বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত। লঘুচাপটি আরও ঘনীভূত হতে পারে। সুস্পষ্ট লঘুচাপ, নিম্নচাপে রূপ নেওয়ার মতো অবস্থায় রয়েছে। তবে কয়েকদিন ধরে বিরাজমান মেঘলা আবহাওয়ায় কোথাও কোথাও হালকা বৃষ্টি হচ্ছে, এর প্রভাব সোমবারও থাকতে পারে।’

তবে শেষ পর্যন্ত নিম্নচাপটি ঘূর্ণিঝড়ের রূপ নিলে এর নাম হবে ‘জাওয়াদ’। এটি সৌদি আরবের দেওয়া নাম।  ১৫ থেকে ১৬ নভেম্বরের ভেতর বঙ্গোপসাগরে এই ঘূর্ণিঝড় সৃষ্টি হওয়ার শঙ্কা রয়েছে। যা ১৮ থেকে ১৯ নভেম্বর ভারতের উপকূলে আঘাত হানতে পারে, যার কিছুটা বাংলাদেশের সুন্দরবনসহ এর আশপাশের এলাকার উপর দিয়েও যেতে পারে বলে ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তরের সূত্রে তাদের গণমাধ্যমগুলো জানাচ্ছে।

এদিকে বৃষ্টির বাগড়ায় দুদিন ধরে হালকা শীত অনুভূত হচ্ছে। তবে আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, মেঘলা আবহাওয়ায় রাতের তাপমাত্রা কিছু কমবে বটে, শীত জাঁকিয়ে আসতে আরও দেরি। নভেম্বর শেষ সপ্তাহের দিকে রাতের তাপমাত্রা কমতে থাকবে, ওই সময় কুয়াশা ও শীতের দাপট নামবে। ডিসেম্বরের শেষার্ধে দেশের উত্তর, উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে মৃদু থেকে মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে।

আবহাওয়াবিদ এ কে এম রুহুল কুদ্দুস বলেন, ‘পূবালী ও পশ্চিমা বায়ুর সংমিশ্রণে এমন মেঘলা আবহাওয়ায় হালকা বৃষ্টিতে শীতালু ভাব এসেছে। হেমন্তে সন্ধ্যা-রাত ও ভোরে কুয়াশা থাকা বা হালকা বৃষ্টি অস্বাভাবিক কিছু নয়; কার্তিকের শেষ সময়ে ঝিরঝিরে বৃষ্টি থাকলে শীতের অনুভূতি বাড়িয়ে দেয়। তবে শীত নামবে নভেম্বরে শেষার্ধে। এ সময় উত্তরী হাওয়ার পরশ পেলেই তাপমাত্রা নামবে তুলনামূলক বেশি।’

রোববার দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল তেঁতুলিয়ায় ১৩.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ঢাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৯.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল টেকনাফে ৩২.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

গত ২৪ ঘণ্টায় খুলনার কুমারখালীতে সর্বোচ্চ ২৮ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। এ সময় ঢাকা, টাঙ্গাইল, ফরিদপুর, মাদারীপুর, গোপালগঞ্জ, নিকলী, চাঁদপুর, শ্রীমঙ্গল, রাজশাহী, চুয়াডাঙ্গা, পটুয়াখালীতে হালকা বৃষ্টি ঝরেছে।