এখন থেকে বৈদেশিক মুদ্রায় জ্বালানি তেল কিনতে পারবে বিদেশি এয়ারলাইন্সগুলো। রাষ্ট্রীয় জ্বালানি তেল কোম্পানি থেকে তেল কেনার জন্য বিদেশি এয়ারলাইন্সের পক্ষে বৈদেশিক মুদ্রায় ড্রাফট ইস্যুর জন্য বৈদেশিক মুদ্রা লেনদেনকারী (এডি) ব্যাংকগুলোকে ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। সোমবার বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে এ সংক্রান্ত নির্দেশনা সব ব্যাংকে পাঠানো হয়।

নির্দেশনায় বলা হয়, বাংলাদেশে কর্মরত বিদেশি এয়ারলাইন্সের পক্ষে এডি ব্যাংক বৈদেশিক মুদ্রায় ড্রাফট ইস্যু করতে পারবে। এক্ষেত্রে ব্যাংকের রিপোর্টিং বিবরণীতে পরিশোধ বাবদ সমতুল্য টাকার অঙ্ক দেখাতে হবে। 

এতোদিন বিদেশি এয়ারলাইন্সগুলো রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কোম্পানি থেকে শুধু বাংলাদেশি মুদ্রা বা টাকায় জ্বালানি তেল কিনতে পারতো।

এতে আরও বলা হয়, বৈদেশিক মুদ্রায় পাওয়া জ্বালানি তেলের মূল্য রাষ্ট্রীয় তেল কোম্পানির নামে বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদনে পরিচালিত বৈদেশিক মুদ্রা হিসাবে জমা রাখা যাবে। পরবর্তীতে নিজেদের আমদানি ব্যয় মেটানোর জন্য যা ব্যবহার করা যাবে। রাষ্ট্রীয় কোম্পানি চাইলে পরবর্তীতে স্থানীয় মুদ্রায় নগদায়ন করতে পারবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের একজন কর্মকর্তা বলেন, সরাসরি বৈদেশিক মুদ্রায় জ্বালানি বিক্রির এ সুবিধার ফলে রাষ্ট্রীয় তেল কোম্পানির বৈদেশিক মুদ্রা আয় হবে। পরবর্তীতে এই বৈদেশিক মুদ্রা আবার আমদানিতে ব্যবহার করা যাবে। এতে করে বিনিময় হারজনিত কোনো লোকসান হবে না। আবার বিদেশি এয়ারলাইন্সও এতে উপকৃত হবে।