রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে সর্বোচ্চ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় রয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। মঙ্গলবার মধ্যরাত থেকে বিশেষ করে পুলিশ প্রশাসন সতর্ক রয়েছে। সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে বিদেশে চিকিৎসার দাবিতে যে আন্দোলন চলছে তা যে কোন সময় বিশৃঙ্খলায় রূপ নিতে পারে। রাজপথের পরিস্থিতি নাজুক হতে পারে বলে পুলিশ মনে করছে। সে কারণেই এই সতর্ক থাকার প্রস্তুতি। 

সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা গেছে, পুলিশ, র‌্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সব ইউনিট যে কোন পরিস্থিতি মোকাবেলায় সতর্ক রয়েছে। এমনকি পুলিশের দায়িত্বশীল যেসকল কর্মকর্তা ছুটিতে ছিলেন, তাদের সেই ছুটি বাতিল করা হয়েছে। দ্রুত নিজ নিজ কর্মস্থলে ফেরার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র বলছে, চিকিৎসার জন্য বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে বিদেশে পাঠানোর দাবি ঘিরে কেউ যেন অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে না পারে, সে লক্ষ্যে দেশব্যাপী নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও গুজব বা অসত্য তথ্য ছড়ানোর চেষ্টা করা হচ্ছে।  এ কারণে বিশৃঙ্খলার আশংকা উড়িয়ে দেয়া যায় না। ফলে কড়া নজর রাখা হচ্ছে সবদিক।

সূত্র বলছে, দেশের সব থানাসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর স্থাপনা ঘিরে সতর্কতা অবলম্বন করা হয়েছে। বাড়ানো হয়েছে গোয়েন্দা নজরদারিও। বুধবার রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে পুলিশের কড়া প্রহরা লক্ষ্য করা গেছে।