পাকিস্তানের বিপক্ষে যখন অনিল কুম্বলে এক ইনিংসে ১০ উইকেট নিয়েছিলেন, তখন হয়তো কেউই ভাবেননি কয়েক বছর পর এমন দৃশ্য ফের দেখা যাবে। কিন্তু ভেঙে গেল সেই ধারণা। ভারতের মাটিতে ভারতের বিপক্ষেই কুম্বলেকে ছুঁয়ে ফেললেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত এক কিউই স্পিনার। নাম তার এজাজ প্যাটেল।

আট বছর বয়সে মুম্বাই ছেড়েছেন তিনি। নিউজিল্যান্ডের হয়ে ভারতের বিপক্ষে যেই মাঠে এমন রেকর্ড করেছেন, সেই শহরেই তার জন্ম হয়েছিল। ছোট থাকতেই নিউজিল্যান্ডে চলে পাড়ি দিয়েছিলেন এজাজ।

এজাজের এমন পারফরম্যান্সের পর ভারতীয় সমর্থকদের কেউ কেউ তাকে 'ঘরের শত্রু বিভীষণ' বলে ডাকতেও পারেন! ভারতীয় সমর্থকেরা খেলার প্রতি যেমন আবেগপ্রবণ, তাতে এমন কথা বলাটা অস্বাভাবিক কিছু নয়। 

মুম্বাই টেস্টের প্রথম দিনে একাই ভারতের চার উইকেট তুলে নেন নিউজিল্যান্ডের স্পিনার এজাজ প্যাটেল। তখনও হয়তো কেউ ভাবতে পারেননি পরেরদিন কি হতে চলেছে।

এরপর দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরুর পর ক্রমে ইতিহাস সৃষ্টির দিকে এগিয়ে গিয়েছেন এজাজ। প্রথমেই আর্ম বলে ফেরত পাঠান গতকাল ভালো ছন্দে ব্যাটিং করা ঋদ্ধিমান সাহাকে। এরপর খাতা খোলার আগেই ফিরে যান অশ্বিন।

এরপর অক্ষর প্যাটেল ও মায়াঙ্কের মধ্যে একটি বড় পার্টনারশিপ হয়। ১৫০ রান সম্পূর্ন করেন মায়াঙ্ক। তারপর সেই এজাজের বলেই উইকেটের পেছনে খোঁচা দিয়ে ফিরে যান তিনি। 

এরপর অর্ধশতরান করা অক্ষরও এজাজের ফাঁদে পা দেন। অলরাউন্ডার জয়ন্ত যাদবও এজাজকে উইকেট উপহার দেন। এরপর শেষ ব্যাটার হিসাবে ক্রিজে আসেন সিরাজ। এক বাউন্ডারি মারার পর নিজের উইকেটটি এজাজকে উপহার দিয়ে আসেন তিনি। তৈরি হয় ইতিহাস। ১৯৫৬ তে জিম লেকার, ২০০৮ এ কুম্বলের কীর্তিকে ছুঁয়ে ফেলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত কিউি স্পিনার। মুম্বাইয়েই তার জন্ম, মুম্বাইয়েই দুর্দান্ত বোলিং করে ইনিংসে একাই ১০ উইকেট নিয়ে ইতিহাসের পাতায় ঢুকে গেলেন এজাজ। ৪৩ ওভার হাত ঘুরিয়ে ১১৯ রান দিয়ে ১০ উইকেট নেন তিনি।

ইতিহাস কাঁপিয়ে দেওয়া এই রেকর্ড করায় কুম্বলের অভিনন্দন পেয়েছেন এজাজ। তার টুইট, 'এজাজ প্যাটেলকে 'পারফেক্ট ১০'–এর ক্লাবে স্বাগত। দারুণ বল করেছ। টেস্টের প্রথম ও দ্বিতীয় দিনের মধ্যে এটা করা খুব কঠিন।'

'ইনিংসে ১০ উইকেট' ক্লাবের আরেক সদস্য জিম লেকার অভিনন্দন জানাতে পারেননি। সে সুযোগ নেই। ৩৫ বছর আগেই না ফেরার দেশে পাড়ি জমিয়েছেন এই ইংরেজ।