করোনাভাইরাসের টিকার বুস্টার ডোজ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি বলেন, এখন যারা ষাটোর্ধ্ব, সম্মুখসারির (ফ্রন্টলাইনার), তাদের দেওয়ার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। সুরক্ষা অ্যাপসে কিছু আপডেট করতে হবে। আশা করা হচ্ছে, এ মাসেই এই কাজ শুরু করা যাবে। 

সোমবার মন্ত্রিসভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, এ পর্যন্ত ১১ কোটি ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে। এ মাসে আরও দেড় থেকে দুই কোটি টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। হাতে প্রায় চার কোটি টিকা আছে। আজকেও যুক্তরাজ্য থেকে ৪০ লাখ ডোজ টিকা পাওয়া যাবে। টিকার কোনো অসুবিধা নেই।

মন্ত্রী আরও বলেন, বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্কুলের ছাত্রদের টিকার অগ্রগতি নিয়ে জিজ্ঞাসা করেছিলেন। আমি বলেছি, সেখানে আমরা সে রকম অগ্রগতি লাভ করতে পারিনি। যেহেতু ফাইজারের টিকা দিতে হচ্ছে দেশের সব কর্নারে তো সেভাবে কোল্ড চেইন নেই। কাজেই যে কয়েকটি জায়গায় আছে, সেখানেই টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা করছি। এটা যাতে আরও বাড়ে, গতি যেন আনতে পারি, সেজন্য আমরা কিছু পদক্ষেপ নিয়েছি। এক হাজার বুথ আমরা বাড়ানোর নির্দেশনা দিয়েছি। আড়াই হাজার বুথ, যেটা আছে, তার সঙ্গে আরও এক হাজার যোগ হলে আমরা মনে করি, টিকা কার্যক্রম আরও বেগবান হবে।

করোনার নতুন ধরন ওমিক্রনের বিষয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরও বলেন, যে দুজনের শরীরে ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছিল, তারা এখন ভালো আছেন। সুস্থ আছেন। তৃতীয় কোনো ব্যক্তির শরীরে ওমিক্রন শনাক্ত হয়নি।