যত গোয়েন্দা তথ্যই হোক; দুর্নীতি কিংবা মানবাধিকার লঙ্ঘনের তথ্য অবশ্যই দিতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান তথ্য কমিশনার মরতুজা আহমেদ।

সোমবার ডেইলি স্টার ভবনে এমআরডিআই ও এশিয়া ফাউন্ডেশন আয়োজিত ‘তথ্য অধিকার আইনে অভিজ্ঞতা বিনিময়’ শীর্ষক সভায় প্রধান তথ্য কমিশনার এ মন্তব্য করেন।

মরতুজা আহমেদ বলেন, তথ্য কমিশন যতদিন আছে; মানুষের তথ্য পাওয়ার অধিকার জীবিত থাকবে। তরুণরাই পারে তথ্য অধিকার আইনে দুর্নীতি প্রতিরোধ, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করতে। ৩০ হাজার ওয়েবসাইট আছে। প্রতিটি কর্নারে তথ্য অধিকারের একটি নির্দেশনামূলক বার্তা আছে। দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কে, কার কাছে যেতে হবে, তা বলা আছে। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষেত্রে খুব কম জায়গাতেই এ কর্নার আছে।

তিনি আরও বলেন, সরকারি অফিসগুলোতে শত বছর ধরে ‘সিক্রেসি’ বলে একটি পলিসি ছিল। প্রকাশ করা ছিল ব্যতিক্রমধর্মী ঘটনা। আর এ তথ্য অধিকার আইন এসে তা একেবারেই পাল্টে দিয়েছে।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন— সাবেক তথ্য কমিশনার নেপাল চন্দ্র সরকার, অধ্যাপক সাদেকা হালিম, এমআরডিআইর নির্বাহী পরিচালক হাসিবুর রহমান ও দ্য এশিয়া ফাউন্ডেশনের বাংলাদেশের রিপ্রেজেন্টেটিভ কাজী ফয়সাল বিন সিরাজ।