তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে আলোকচিত্রী শহিদুল আলমের বিরুদ্ধে করা মামলার তদন্ত অব্যাহত বলে রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট। 

মামলার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে দায়ের করা রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি রাজিক আল জলিল সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ জারি করা রুল খারিজ করে সোমবার এ রায় দেন। এ রায়ের ফলে শহিদুল আলমের বিরুদ্ধে এ মামলার তদন্ত চলতে কোনো বাধা নেই বলে জানিয়েছেন তার আইনজীবী।

আদালতে শহিদুল আলমের পক্ষে শুনানি করেন সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এ এফ হাসান আরিফ ও সারা হোসেন। রাস্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল এএমআমিন উদ্দিন ও ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তুষার কান্তি রায়।

এর আগে ২০১৯ সালের ৩ মার্চ মামলাটির বৈধতা নিয়ে রিট করা হলে সংশ্লিষ্টদের প্রতি রুল জারি করেন আদালত। সেই রুল খারিজ করে এবং তদন্ত কাজের ওপর স্থগিতাদেশ বাতিল করে এই রায় দিয়েছেন।

নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মধ্যে ২০১৮ সালের ৩ ও ৪ আগষ্ট জিগাতলা এলাকায় সংঘর্ষের বিষয়ে কথা বলতে ফেসবুক লাইভে এসেছিলেন শহিদুল। 

ওই আন্দোলনের বিষয়ে আল জাজিরাকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি সরকারের সমালোচনাও করেন। 

এরপর ৫ আগষ্ট শহিদুল আলমকে তার বাসা থেকে নিয়ে যায় গোয়েন্দা পুলিশ। পরদিন ৬ আগষ্ট ‘উসকানিমূলক মিথ্যা’ প্রচারের অভিযোগে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে তার বিরুদ্ধে রমনা থানায় মামলা হয়। পরে তিন মাস পর জামিন পান তিনি।