প্রচার বা নির্বাচনী কার্যক্রমে সংসদ সদস্য ও সরকারি সুবিধাভাগী অতি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের অংশ না নেওয়ার নির্দেশনা দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। যেসব এলাকায় এমপিদের প্রচার বা নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশগ্রহণের প্রমাণ পাওয়া যাচ্ছে, তাদের অবিলম্বে এলাকা ত্যাগের অনুরোধ করেছে কমিশন।

শনিবার ইসির নির্দেশনায় বলা হয়, ইউপি নির্বাচন আচরণ বিধিমালা ২০১৬ অনুসারে সরকারি সুবিধাভোগী অতি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা নির্বাচন-পূর্ব সময়ে নির্বাচনী এলাকায় প্রচার বা নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করতে পারেন না। কিন্তু ইউনিয়ন পরিষদ সাধারণ নির্বাচনে কোনো কোনো সংসদ সদস্য অংশ নিচ্ছেন বলে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। বিভিন্ন গণমাধ্যমেও এসব খবর আসছে।

এদিকে নির্বাচনে চলমান সহিংসতা রোধে মাঠ প্রশাসনের সহযোগিতা চেয়েছে ইসি। ইসি সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার সম্প্রতি এক চিঠিতে (ডিও) মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলামের কাছে এ বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহণের অনুরোধ জানিয়েছেন।

চিঠিতে বলা হয়, নির্বাচনের তপশিল ঘোষণার পর থেকেই সহিংসতায় দেশের বিভিন্ন স্থানে হতাহতের খবর গণমাধ্যমে প্রকাশিত হচ্ছে। বিষয়টি ইসির নজরে এসেছে এবং এ নিয়ে তারা উদ্বিগ্ন। আসন্ন নির্বাচন উপলক্ষে আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনী নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি স্থানীয় প্রশাসন নির্বাচনী সহিংসতা নিয়ন্ত্রণে আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করবে বলে ইসি আশা করে। পুলিশ কর্মকর্তাদেরও ইউপি নির্বাচনে নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালন এবং কোনো রকম হস্তক্ষেপ না করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এদিকে রোববার সকাল ৮টা থেকে সহিংসতা আর সংঘাতময় পরিস্থিতির শঙ্কার মধ্যেই চতুর্থ ধাপে ৮৩৬ ইউনিয়ন পরিষদে (ইউপি) ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। শীত উপেক্ষা করে সকাল সকাল কেন্দ্রে হাজির হচ্ছেন ভোটাররাও। বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে চলবে এ কর্মসূচি। এ ধাপে ৭৯৮ ইউপিতে ব্যালট পেপারে এবং ৩৮টিতে ইভিএমে ভোট অনুষ্ঠিত হবে।

দেশের ৫৮টি জেলার ১১৮টি উপজেলার এসব ইউপিতে শুক্রবার রাতেই প্রার্থীদের আনুষ্ঠানিক প্রচার শেষ হয়েছে।

এই ধাপে ভোটের আগেই ৪৮ ইউপিতে চেয়ারম্যান প্রার্থীরা বিনা ভোটে জয় নিশ্চিত করেছেন। ফলে রোববার ৭৯০ ইউপির চেয়ারম্যান পদে ভোট হবে। এছাড়া সংরক্ষিত নারী ওয়ার্ডের সদস্য পদে ১১২ জন এবং সাধারণ ওয়ার্ড সদস্য পদে ১৩৫ জন বিনা ভোটে নির্বাচিত হয়েছেন।

৭৯০ ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন তিন হাজার ৮১৪ জন। নারীদের জন্য সংরক্ষিত ওয়ার্ডের সদস্য পদে ৯ হাজার ৫১৩ জন এবং সাধারণ ওয়ার্ডের সদস্য পদে ৩০ হাজার ১০৬ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ৮৩৮ ইউপিতে মোট ভোটার এক কোটি ৬২ লাখ ৭৪ হাজার ৬৬০ জন। এর মধ্যে নারী ভোটার ৮০ লাখ ২৩ হাজার ৪৪৯ জন। মোট ৯ হাজার ২২৪টি ভোটকেন্দ্রের ৪৯ হাজার ৮৩২টি ভোট কক্ষে এ ধাপে ভোট হবে।