ভরা মৌসুমেও চড়া যাচ্ছে সবজির বাজার। বগুড়ার কৃষক ২০ টাকা দরে যে কাঁচামরিচ বিক্রি করছেন, ঢাকার মানুষ তা কিনছেন ৮০ টাকায়। একইভাবে নাটোরে ১৮ টাকা কেজি দরে বিক্রি করা শিম ঢাকায় বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়। ১৫ টাকার ফুলকপি প্রতি পিস বিক্রি হচ্ছে ৪০-৫০ টাকায়। উৎপাদকের হাত থেকে ভোক্তার কাছে আসতে আসতেই দাম বেড়ে যায় তিন থেকে চার গুণ।

অনুসন্ধানে দেখা গেছে, বারবার হাতবদল, অতিরিক্ত মুনাফার প্রবণতা, পথে পথে চাঁদাবাজি, জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার অজুহাত এবং বাজারে যথাযথ নজরদারির অভাবে বেড়েছে সবজির দাম। গ্রামের সবজি রাজধানীতে ভোক্তার ঘরে যেতে কৃষকের পর অন্তত চারটি হাত ঘোরে।

কৃষকের ক্ষেতের সবজি প্রথম যায় পাইকারি ব্যবসায়ীর হাতে। এরপর যায় ঢাকার আড়তে, তারপর ছোট পাইকারি ব্যবসায়ী, এরপর খুচরা বিক্রেতা এবং সবশেষে ভোক্তার কাছে। প্রতিটি হাত বা স্তরে বাড়তি ব্যয় ও দাম যুক্ত হতে থাকে।

আলোচনা করেছেন সমকালের ষ্টাফ রিপোর্টার ইন্দ্রজিৎ সরকার ও সহ-সম্পাদক রিফাত তাসনুভা