করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে টিকা নেওয়ার জন্য ১২-১৮ বছর বয়সীদের শুধু শিক্ষার্থী হিসেবে প্রমাণ হলেই চলবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

আজ সোমবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা জানান।

আপাতত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হচ্ছে না জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, সীমিত পরিসরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম চলবে

এর আগে গত ৩০ ডিসেম্বর মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) এক নির্দেশনায় বলা হয়, জন্মনিবন্ধন সনদের মাধ্যমে সুরক্ষা অ্যাপে নিবন্ধন করে ১৫ জানুয়ারির মধ্যে ১২ থেকে ১৮ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের করোনাভাইরাসের টিকা দিতে চায় সরকার। এ জন্য যেসব শিক্ষার্থীর জন্মনিবন্ধন নেই এবং যাদের ১৬ ডিজিটের নিবন্ধন নম্বর নেই, তাদের আবার নিবন্ধন করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধানদের জানাতে হবে। এরপর করোনার টিকার জন্য যোগ্য সব শিক্ষার্থীর প্রতিষ্ঠানভিত্তিক তালিকা ৭ জানুয়ারির মধ্যে সিভিল সার্জন কার্যালয়ে পাঠানোর বিষয়টি জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ও উপজেলা বা থানা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাদের নিশ্চিত করতে বলা হয়েছিল। ৮ জানুয়ারি থেকে ১৫ জানুয়ারির মধ্যে টিকা দেওয়ার নির্ধারিত দিনে ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে উপস্থিত হওয়ার বিষয়টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধানদের নিশ্চিত করতে বলা হয়েছিল।

এরপর গত শনিবার মাউশির এক আদেশে বলা হয়, ১২ বছর থেকে ১৮ বছর বয়সী স্কুল, কলেজগামী শিক্ষার্থীরা টিকা নেওয়া ছাড়া ক্লাস করতে পারবে না। এ বয়সী সব ছাত্রছাত্রীকে করোনার টিকা বাধ্যতামূলকভাবে নিতে হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধানরা নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীদের টিকাকেন্দ্রে উপস্থিত হওয়া নিশ্চিত করবেন।