ডেল্টা লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানিতে প্রশাসক নিয়োগের আদেশ বাতিল করে হাইকোর্টের দেওয়া রায় স্থগিত হয়েছে। বীমা নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইডিআরএ'র করা আপিলের শুনানি নিয়ে সোমবার হাইকোর্টে রায়ে স্থগিতাদেশ দেন সুপ্রিম কোর্টের চেম্বার আদালত। 

পাশাপাশি আপিলটি নিষ্পত্তির জন্য আগামী ১৬ জানুয়ারি প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন বেঞ্চেও শুনানির দিন ধার্য করেছেন। আপিল বিভাগের চেম্বার আদালতের বিচারপতি ওবায়দুল হাসান এ আদেশ দিয়েছেন।

আদালতে ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির পক্ষে শুনানি করে আইনজীবী ব্যারিস্টার মো. মোস্তাফিজুর রহমান খান। তিনি চেম্বার আদালতের আদেশ বিষয়ে সার্টিফায়েড কপিতে বলেন, চেম্বার আদালত প্রশাসক নিয়োগ বাতিল করে হাইকোর্টের দেওয়া রায় স্থগিত করেছেন। এর ফলে বীমা কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ ফের স্থগিত হয়েছে এবং ডেল্টা লাইফে প্রশাসক পদে কুদ্দুস খানের দায়িত্ব পালনে কোনো বাধা নেই।

জানতে চাইলে আইডিআরএ'র চেয়ারম্যান ড. এম মোশাররফ হোসেন সমকালকে জানান, আইডিআরএ নিযুক্ত আইনজীবীও তাকে এ তথ্য দিয়েছেন। আদালতের আদেশের পর বিকেলেই ফের দায়িত্ব ভার গ্রহণ করেছেন ডেল্টা লাইফে আইডিআরএ নিযুক্ত তৃতীয় প্রশাসক কুদ্দুস খান।

এর আগে গত ৬ জানুয়ারি ডেল্টা লাইফে প্রশাসক নিয়োগ সংক্রান্ত আইডিআরএ'র আদেশকে অবৈধ বলে রায় দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। ওই রায়ের পর কুদ্দুস খান ডেল্টা লাইফের অফিস ছেড়ে গিয়েছিলেন।

কর ফাঁকিসহ নানা আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ এনে গত বছরের ১১ ফেব্রুয়ারি ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের তৎকালিন পর্ষদকে স্থগিত করে সংস্থার সাবেক সদস্য সুলতান-উল আবেদীন মোল্লাকে চার মাসের জন্য প্রশাসক নিয়োগ করেছিল আইডিআরএ। চার মাস পর অপর এক আদেশে পর্ষদ স্থগিত ও প্রশাসক নিয়োগের আদেশ অনির্দিষ্টকাল পর্যন্ত প্রলম্বিত করে।

আইডিআরএ'র উভয় আদেশকে অবৈধ ঘোষণার আবেদন জানিয়ে গত ফেব্রুয়ারি ও জুনে হাইকোর্টে রিট করেছিল ডেল্টা লাইফের স্থগিতকৃত পর্ষদ। তাদের দাবি, আইডিআরএ'র চেয়ারম্যান ড. এম মোশাররফ হোসেনের বিরুদ্ধে ঘুষ দাবির বিষয়ে তথ্য প্রমাণসহ সংবাদ সম্মেলন করার পর ব্যক্তিগত ক্ষোভ থেকে ওই আদেশ দেওয়া হয়।

হাইকোর্টের রায়ে ওই আদেশ অবৈধ ঘোষিত হওয়ার পর ডেল্টা লাইফের পরিচালনা পর্ষদের এক সদস্য জানিয়েছিলেন, ডেল্টা লাইফের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ এনে তা উদঘাটনের জন্য যে প্রশাসক আইডিআরএ নিয়োগ দিয়েছিল, তারাই অনিয়ম করেছে। বিষয়গুলো হাইকোর্টের নজরে আনা হলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আদালত অবমানার রুল জারি হয়। এ কারণে ডেল্টা লাইফে আট মাসের মধ্যে তিন পৃথক প্রশাসক নিয়োগ করতে বাধ্য হয় আইডিআরএ।

প্রথম প্রশাসক সুলতান-উল মোল্লাকে নিয়োগের চার মাস পরই আইডিআরএ তাকে প্রত্যাহার করেছিল। দ্বিতীয় প্রশাসক হিসেবে সাবেক অতিরিক্ত সচিব রফিকুল ইসলামকে নিয়োগ দেওয়ার চার মাসেরও কম সময়ে প্রত্যাহার করেন বীমা নিয়ন্ত্রক সংস্থা।

গত অক্টোবরের শেষে দ্বিতীয় প্রশাসককে সরিয়ে তৃতীয় প্রশাসক হিসেবে সাবেক সাবেক সচিব কুদ্দুস খানকে নিয়োগ দেয় আইডিআরএ। হাইকোর্টের রায় ঘোষণার পরই বীমা কোম্পানিটিতে তৃতীয় প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ পাওয়া সাবেক সচিব কুদ্দুস খান ডেল্টা লাইফের কার্যালয় ছেড়ে যান। একই সঙ্গে তার নিয়োগ করা উপদেষ্টা এবং বিশেষ নিরীক্ষা প্রতিষ্ঠান একনাবিনের কর্মকর্তারাও ডেল্টার কার্যালয় ত্যাগ করেছিলেন। এরপর গত ৬ জানুয়ারি বিকেলেই স্থগিতকৃত পর্ষদ ফের দায়িত্ব নিয়ে একটি সভাও করেছিল। চেম্বার আদালতের নতুন আদেশের ফলে ওই পরিচালনা পর্ষদ ফের স্থগিত হলো।