করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী, আগামী বৃহস্পতিবার থেকে গণপরিবহন চলবে আসনের অর্ধেক যাত্রী নিয়ে। অর্ধেক সিট খালি রাখায় বাসের ভাড়া কত বাড়বে- এ বিষয়ে আগামীকাল বুধবার বেলা আড়াইটায় বাস মালিকদের সঙ্গে পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) সভায় সিদ্ধান্ত হবে।

আগেরবার বাস ভাড়া ৬০ শতাংশ বেড়েছিল অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলার কারণে। মাস দুই আগে ডিজেলের দাম বৃদ্ধিতে বাস ভাড়া বেড়েছে। এখন অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলার কারণে বাস ভাড়া বাড়লে তা যাত্রীদের জন্য 'বোঝার ওপর শাকের আঁটি' হয়ে দাঁড়াবে।

বিআরটিএ চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মজুমদার সমকালকে বলেন, 'বাসে অর্ধেক যাত্রী পরিবহনের সরকারি নির্দেশনা কিভাবে কার্যকর করা হবে- তা বুধবার মালিকদের সঙ্গে বৈঠকে ঠিক করা হবে। ভাড়া বাড়বে কি-না, বাড়লে কতটা বাড়বে- সে বিষয়েও সিদ্ধান্ত হবে। ভাড়া বৃদ্ধি বৈঠকের উদ্দেশ্য নয়। বিআরটিএ সবার আগে জনস্বার্থ দেখবে।'

২০২০ সালের মার্চে করোনা সংক্রমণ রোধে লকডাউনের প্রথম দফায় ৬৮ দিন বাসসহ সব ধরনের গণপরিবহন বন্ধ ছিল। সে বছরের ১ জুন থেকে আসনের অর্ধেক যাত্রী নিয়ে বাস চলাচল শুরু হয়। মালিকদের প্রস্তাবে সেবার ৬০ শতাংশ ভাড়া বাড়ানো হয়েছিল। গত বছর দুই দফার 'লকডাউনের' পরও ভাড়া বাড়িয়ে অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলেছিল বাস।

ডিজেলের দাম লিটারে এক লাফে ১৫ টাকা বৃদ্ধি পাওয়ায় গত ৮ নভেম্বর বাসের ভাড়া ২৭ শতাংশ বাড়ানো হয়। ঢাকায় বাসের ভাড়া কিলোমিটারে এক টাকা ৭০ পয়সা থেকে বাড়িয়ে দুই টাকা ১৫ পয়সা করা হয়েছে। দুরপাল্লার বাসের ভাড়া কিলোমিটারে এক টাকা ৪২ পয়সা থেকে বাড়িয়ে এক টাকা ৮০ পয়সা করা হয়েছে। কিন্তু আসন বিন্যাসের কারণে ৪০ আসনের বাসে সেই ভাড়া পরছে দুই টাকা ৩৪ পয়সা।

আগেরবার অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলার শর্ত মানতে মালিকরা বাসভাড়া ৮০ শতাংশ বৃদ্ধির প্রস্তাব করেছিল। পরে মন্ত্রণালয় ৬০ শতাংশ ভাড়া বাড়িয়েছিল। সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহ সমকালকে বলেন, 'ভাড়া কত বাড়াতে হবে- এমন কোনো প্রস্তাব মালিকরা দেবেন না। অর্ধেক সিট খালি রাখলে মালিকের লোকসান হবে। আবার যাত্রীদের স্বার্থও দেখতে হবে। লোকসান পোষাতে যতটা ভাড়া না বাড়ালেই নয়, ততটা বাড়ানোর দাবি করবেন মালিকরা।'

পরিবহন মালিক সূত্র জানিয়েছে, অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলতে অন্তত ৫০ শতাংশ ভাড়া বৃদ্ধি চান তারা। তবে যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেন, 'স্কুল-কলেজ, অফিস-আদালত খোলা রেখে অর্ধেক যাত্রী নিয়ে বাস চালানোর সিদ্ধান্ত বাস্তবসম্মত নয়। এতে শুধু ভাড়া বাড়বে। কিন্তু বাস্তবে দেখা যাবে- যানবাহন সঙ্কটের কারণে বাস যাত্রীবোঝাই হয়ে চলবে।'

ডিজেলের দাম বৃদ্ধির কারণে মাস দুই আগে ঢাকা থেকে ময়মনসিংহ পর্যন্ত বাসের ভাড়া ২১৫ টাকা থেকে ২৭০ টাকা হয়েছে। অর্ধেক আসন খালি রাখার কারণে মালিকদের দাবি মেনে ৫০ শতাংশ বাড়লেও ভাড়া হবে ৪০৫ টাকা। অর্থাৎ দুই মাসের ব্যবধানে বাস ভাড়া দ্বিগুণ হবে।

মাস দুই আগে মিরপুর-১০ থেকে মতিঝিল পর্যন্ত বাসে ভাড়া ছিল ২০ টাকা। এখন ২৬ টাকা হয়েছে। অর্ধেক বাড়লেও ভাড়া হবে ৩৯ টাকা। অর্থাৎ নগর পরিবহনে ভাড়া দুই মাসের ব্যবধানে দ্বিগুণ হয়ে যাবে।

আগের বিধিনিষেধ চলাকালে অ্যাপভিত্তিক গাড়িতেও আসনের অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলার নিদের্শনা দেওয়া হয়েছিল। বন্ধ ছিল মোটরসাইকেলে যাত্রী পরিবহন। এবারও এমন সিদ্ধান্ত আসবে কিনা- এ বিষয়ে বিআরটিএ চেয়ারম্যান বলেন, 'যেসব যানবাহনে অর্ধেক যাত্রী পরিবহন সম্ভব নয়, সেগুলো তো চালানো যাবে না। তবে এসব বিষয়ে সিদ্ধান্ত বুধবারের বৈঠকেই হবে।'