শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশি হামলার নিন্দা জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক নেটওয়ার্ক। সেই সঙ্গে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সংহতি জানিয়ে উপাচার্যের পদত্যাগ দাবি করেছেন তারা।

মঙ্গলবার বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪৭ জন শিক্ষকের স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এই দাবি জানানো হয়।

এতে বলা হয়, শাবিপ্রবিতে যা ঘটেছে, তার নিন্দা জানানোর ভাষা আমাদের নেই। পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে কেবল যে উপাচার্য ব্যর্থ হয়েছেন তাই নয়, বরং শিক্ষার্থীদের ওপরে হামলার নির্দেশ দিয়ে ফৌজদারি অপরাধ করেছেন তিনি। আন্দোলনের মুখে প্রভোস্ট পদত্যাগ করলেও, শিক্ষার্থীদের ওপর ন্যক্কারজনক হামলা ইতিমধ্যে ঘটে গিয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, অন্যান্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ধারাবাহিকতায় শাবিপ্রবিতেও প্রশাসনের নির্দেশে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা করছে পুলিশ। লাঠিচার্জ থেকে শুরু করে সাউন্ড গ্রেনেড ইত্যাদি নানা উপায় অবলম্বন করে পুলিশ শিক্ষার্থীদের রক্তাক্ত করেছে, হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়েছে অনেককে।

শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে মামলা করে তাদের হয়রানি বন্ধ করার দাবিও জানানো হয় বিবৃতিতে। পাশাপাশি শাবিতে আবাসনসহ শিক্ষাসংক্রান্ত সব সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি করা এবং উপাচার্যসহ সব শিক্ষক নিয়োগে দলীয় পরিচয়কে তুচ্ছ করে মেধা ও শিক্ষাগত যোগ্যতাকে প্রধান করে তোলারও আহ্বান জানানো হয়।

বিবৃতিতে স্বাক্ষরকারী শিক্ষকদের মধ্যে রয়েছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আনু মুহাম্মদ, সাঈদ ফেরদৌস, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোবায়েত ফেরদৌস, গীতি আরা নাসরীন, মো. কামরুল হাসান, মোহাম্মদ তানজীম উদ্দীন খান, সামিনা লুৎফা, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ফোকলোর বিভাগের অধ্যাপক সুস্মিতা চক্রবর্তী, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক কাজী মামুন হায়দার, নাট্যকলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক কাজী শুসমিন আফসানা, ফোকলোর বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আমিরুল ইসলাম কনক, বাংলা বিভাগের অধ্যাপক সৌভিক রেজা, চবির যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আর রাজী, মো. সাদেকুল ইসলাম প্রমুখ।