শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের প্রতিবাদে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শিক্ষার্থীরা অবস্থান কর্মসূচি শুরু করেছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সচল রাখার দাবিও জানিয়েছেন তারা। 

শুক্রবার বিকেল ৪টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বুদ্ধিজীবী চত্বরে অবস্থান কর্মসূচি শুরু হয়। ৫টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত তাদের কর্মসূচি চলছিল। 

এদিকে করোনা পরিস্থিতিতে বৃহস্পতিবার সশরীরে ক্লাস ও পরীক্ষা চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণের পর আজ শুক্রবার বিকেল ৫টায় আবার জরুরি সভা ডেকেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। তবে শিক্ষার্থীদের স্বার্থের অনুকূল সিদ্ধান্ত না আসলে কঠোর আন্দোলনের হুশিয়ারি দেন আন্দোলনকারীরা। 

কর্মসূচিতে শিক্ষার্থীরা বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের যে ঘোষণা স্বাস্থ্যমন্ত্রী দিয়েছেন তারই প্রেক্ষিতে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন একাডেমি কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সভায় বসবে। সেই সভায় যেনো বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস স্বাস্থ্যবিধি মেনে চালু রাখা হয় সেটির জন্য আমরা অবস্থান নিয়েছি। প্রায় দেড় বছর বন্ধ রাখার পর কয়েক মাস আগে বিশ্ববিদ্যালয় খুলেছে। বিভিন্ন বিভাগে পরীক্ষা শুরু হয়েছে। এর মধ্যেই পুনরায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের তালবাহানা চলছে। এটি নিঃসন্দেহে শিক্ষা খাতকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দেওয়ার মত। আজকের সভা শেষে আমাদের শিক্ষার্থীদের পক্ষে যদি কোনো সিদ্ধান্ত আসে তাহলে আমরা তাদেরকে সাধুবাদ জানাব৷ আর যদি আমাদের বিপক্ষে কোনো সিদ্ধান্ত আসে তাহলে কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে। 

তারা আরো বলেন, আগে করোনার অজুহাতে বাজার, শপিংমল ও পর্যটন খাত খোলা রেখে দীর্ঘ দেড় বছর শুধু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়। যাতে আমাদের শিক্ষাজীবন ও সদন প্রাপ্তির বিলম্ব হয়। এছাড়া অনেক চাকরিসহ বিভিন্ন প্রতিযোগিতামূলক কাজ প্রাপ্তির সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে শিক্ষার্থীরা। আমরা আর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ চাই না।

এসময় শিক্ষার্থীদের হাতে 'শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্বাভাবিক রাখতে হবে', শিক্ষা ধ্বংসের পাঁয়তারা রুখে দাও', 'শিক্ষা বাঁচাও, দেশ বাঁচাও', শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের সিদ্ধান্ত মানি না, মানব না', 'শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রক্ষা করতে ঐক্যবদ্ধ হও' ইত্যাদি লেখা সম্বলিত প্ল্যাকার্ড দেখা যায়।

ছাত্র অধিকার পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক আমানুল্লাহ আমানের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন রাজশাহী প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আসলাম উদ দৌলা, বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্র ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মোহাব্বত হোসেন মিলন, নাগরিক ছাত্র ঐক্যের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ হোসেন, অ্যাপ্লাইড কেমিস্ট্রি ও কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের রাকিবুল হাসান রাকিব প্রমুখ।