আলোচিত ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান কিউকমে অর্ডার করে যে সব গ্রাহক পণ্য পাননি, আবার টাকাও ফেরত পাননি তাদের জন্য সুখবর। সোমবার কিউকমের এ ধরনের গ্রাহকদের টাকা ফেরত দেওয়া হবে। প্রাথমিকভাবে টাকা পাবেন ছয় হাজার ৭২১ জন ক্রেতা।

এ উপলক্ষ্যে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব তপন কান্তি ঘোষ ১৫ থেকে ২০ জন ক্রেতার আটকে থাকা টাকা অনলাইন ব্যবস্থায় ফেরত দেবেন। বাকিদের টাকা দেওয়া হবে কিউকমের ব্যবস্থাপনায়।

এ বিষয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের ডিজিটাল কমার্স সেলের প্রধান অতিরিক্ত সচিব এ এইচ এম সফিকুজ্জামান সমকালকে বলেন, পেমেন্ট গেটওয়ে কোম্পানি ফস্টারের কাছে কিউকমের বেশকিছু টাকা আটকে আছে। যা কিউকম থেকে পণ্য কেনার জন্য ক্রেতারা আগাম পরিশোধ করেছিলেন। কিন্তু ফস্টার কিউকমকে পরিশোধ করেনি। সেই আটকে থাকা টাকার একটি অংশ সোমবার ফেরত দেওয়া হবে। এর মধ্য দিয়ে পেমেন্টগেটওয়ে কোম্পানিগুলোর কাছে আটকে থাকা টাকা গ্রাহককে ফেরত দেওয়া শুরু হচ্ছে। এর পর কিউকমের অন্য গ্রাহকের টাকা, আলাদীনের প্রদীপ, ধামাকাসহ অন্যান্য কোম্পানির গ্রাহকদের টাকাও ফেরত দেওয়া হবে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, ফস্টার পেমেন্ট গেটওয়ের কাছে কিউকমের গ্রাহকদের মোট ৩৯২ কোটি টাকা আটকে আছে। এর মধ্যে ১৬৬ কোটি টাকা আটকা পড়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক এসক্রো সার্ভিস চালু করার পর। অর্থাৎ গত ৩০ জুনের পরে। এসব ক্রেতা কোনো পণ্যই পাননি। এমনকি কিউকম কর্তৃপক্ষও এই টাকা তাদের অ্যাকাউন্টে নিতে পারেনি। এদের মধ্যে ছয় হাজার ৭২১ জন গ্রাহকের ৫৯ কোটি ৫ লাখ ১০ হাজার ৩৪৭ টাকা ফেরত দেওয়া হচ্ছে।

বাকি টাকাও পর্যায়ক্রমে ফেরত দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের ডিজিটাল কমার্স সেলের প্রধান।

জানা যায়, শিগগির কিউকমের অফিস খুলে দেওয়া হবে। কোম্পানিটির গুদামে থাকা প্রায় ১০০ কোটি টাকার পণ্য ক্রেতাদের ডেলিভারি দিতে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সম্প্রতি বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের একটি প্রতিনিধি দল কিউকমের গুদাম পরিদর্শন করেছে।