দেশের উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের আত্মহননের ঘটনা আশঙ্কাজনকভাবে বাড়ছে। গত বছর সারাদেশে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০১ শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন। গত বছরের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত যারা এমন অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যুর পথ বেছে নিয়েছেন, তাদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি রয়েছেন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। এর মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েরই ৯ জন। এক বছরে এত শিক্ষার্থীর আত্মহত্যার ঘটনা এবারই প্রথম।

বেসরকারি একটি সংগঠনের সমীক্ষায় এ তথ্য পাওয়া গেছে। গবেষকরা জানিয়েছেন, সম্পর্কের অবনতি, পারিবারিক জটিলতা, পড়াশোনা নিয়ে হতাশা, আর্থিক সংকট- এসব আত্মহত্যার ঘটনার মূল কারণ।

বেসরকারি সংগঠন আঁচল ফাউন্ডেশন তাদের এ-সংক্রান্ত সমীক্ষা প্রতিবেদনটি আজ শনিবার ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে তুলে ধরবে। ২০২১ সালের অর্ধশতাধিক জাতীয় ও স্থানীয় দৈনিক এবং অনলাইন পোর্টালে প্রকাশিত খবর বিশ্নেষণের ভিত্তিতে প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে।

২০১৯ সাল থেকে আঁচল ফাউন্ডেশন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে মানসিক স্বাস্থ্য সচেতনতা তৈরিতে কাজ করছে। এর আগে আলাদা করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যার সংখ্যা নিয়ে কাজ করেনি সংগঠনটি। তবে বিভিন্ন সূত্র থেকে তারা তিন বছরের তথ্য সংগ্রহ করেছে। সে তথ্য অনুযায়ী, ২০১৮ সালে ১১ এবং ২০১৭ সালে ১৯ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন। ২০২০ সালের মার্চে করোনা সংক্রমণ শুরুর পর থেকে ১৫ মাস স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়সহ সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে তারা জরিপ করে। তাতে দেখা যায়, আত্মহত্যা করা ৫০ জনের মধ্যে ৪২ জন ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী।

২০২১ সালে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে ১০১টি। সবচেয়ে বেশি আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে, ৬১.৩৯ শতাংশ, ৬২ জন। এ ছাড়া মেডিকেল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ১২ জন (১১.৮৮ শতাংশ), প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে ৪ (৩.৯৬ শতাংশ) এবং বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৩ জন (২২.৭৭) শিক্ষার্থী আত্মহত্যার পথ বেছে নেন। সবচেয়ে বেশি ৯ জন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছয়জন, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঁচজন এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে চারজন আত্মহত্যা করেছেন। প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে সবচেয়ে বেশি আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ে- তিনজন।

আত্মহননকারীদের বয়সভিত্তিক তথ্য পর্যালোচনায় দেখা গেছে, ২২-২৫ বছর বয়সীদের মধ্যে আত্মহত্যার প্রবণতা বেশি। এ বয়সসীমার শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৬০টি আত্মহত্যার ঘটনা দেখা গেছে, যা মোট ঘটনার ৫৯.৪১ শতাংশ। অন্যদিকে ১৮-২১ বছর বয়সী ২৬.৭৩ শতাংশ, ২৭ জন। ২৬-২৯ বছর ৯.৯০ শতাংশ, ১০ জন এবং ২৯ বছরের ওপরে ৩.৯৬ শতাংশ, চারজন। আত্মহত্যাকারীদের বড় অংশই পুরুষ শিক্ষার্থী। ৬৫ পুরুষ শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন, যা মোট শিক্ষার্থীর ৬৪.৩৬ শতাংশ। নারী শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে এই সংখ্যা ৩৬ জন বা ৩৫.৬৪ শতাংশ।

মাসভিত্তিক আত্মহত্যা প্রবণতা পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, ডিসেম্বরে আত্মহত্যার হার ১৪.৮৫ শতাংশ বা ১৫ জন এবং সবচেয়ে কম এপ্রিলে, যা ১.৯৮ শতাংশ বা দু'জন। এতে দেখা গেছে, গ্রীষ্ফ্মকালের চেয়ে শীতকালে আত্মহত্যার হার বেশি।

স্নাতক তৃতীয় ও চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থীদের মধ্যে আত্মহত্যার হার তুলনামূলক বেশি, ৩৬.৬৩ শতাংশ।

আত্মহত্যার কারণের মধ্যে বেশ কিছু উদ্বেগজনক তথ্য উঠে এসেছে। সম্পর্কের অবনতির কারণে আত্মহনন করেছেন ২৪.৭৫ শতাংশ এবং পারিবারিক সমস্যার কারণে ১৯.৮০ শতাংশ। মানসিক যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পেতে ১৫.৮৪ শতাংশ, পড়াশোনা-সংক্রান্ত কারণে ১০.৮৯ শতাংশ, আর্থিক সমস্যায় ৪.৯৫ শতাংশ, মাদকাসক্ত হয়ে ১.৯৮ শতাংশ এবং অন্যান্য কারণে ২১.৭৮ শতাংশ শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন।

আঁচল ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি তানসেন রোজ শিক্ষার্থীদের অনিশ্চিত ভবিষ্যতের জন্য উপযোগী করে গড়ে তুলতে না পারাকে আত্মহত্যা বেড়ে যাওয়ার প্রধান নিয়ামক হিসেবে চিহ্নিত করেছেন। তিনি বলেন, আত্মহত্যার কারণগুলো বাইরে থেকে যতটা দেখা যাচ্ছে, সমস্যা তার চেয়েও গভীর। নতুন পরিস্থিতির সঙ্গে খাপ খাওয়ানোর জন্য প্রয়োজনীয় শিক্ষার সুযোগ অপর্যাপ্ত হওয়ায় জীবনে অপ্রত্যাশিত কিছু ঘটলে শিক্ষার্থীরা সেটা সামলাতে পারেন না। প্রেমে বিচ্ছেদ হলে তারা যেমন ভেঙে পড়েন, তেমনি পরীক্ষায় খারাপ ফলাফলও তাদের আশাহত করে।

তানসেন রোজ বলেন, ভালো-মন্দ যাই ঘটুক, সেটি জীবনেরই অংশ। আত্মবিশ্বাস না হারিয়ে ধৈর্যশীল হতে হবে। জীবনটা অনেক মূল্যবান।

সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে বাস্তবমুখী কিছু জ্ঞান যেমন- আর্থিক ব্যবস্থাপনা, আবেগ নিয়ন্ত্রণ, ক্যারিয়ারবিষয়ক দক্ষতা উন্নয়ন আত্মহত্যা কমাতে বড় ভূমিকা রাখতে পারে বলে মনে করেন তানসেন। তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যার ঘটনাগুলো আমাদের চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিচ্ছে যে, এখনই পদক্ষেপ নিতে না পারলে পরে আমাদের অনুশোচনা করতে হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লিনিক্যাল সাইকোলজি বিভাগের অধ্যাপক কামাল চৌধুরী বলেন, মানসিক স্বাস্থ্যের বিষয়ে আমরা উদাসীন। বড় ধরনের ক্ষতি কমাতে সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে সমন্বিতভাবে কাজ করা দরকার। প্রতিটি জেলায় আত্মহত্যা সেল গঠন করে জনগণের মধ্যে সচেতনতা বাড়াতে হবে। সমন্বিতভাবে সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে এ বিষয়ে দিকনির্দেশনা তৈরি করতে হবে।

আঁচল ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক সামিরা আক্তার সিয়াম বলেন, হতাশামুক্ত ভবিষ্যৎ প্রজন্ম তৈরিতে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। মানসিক স্বাস্থ্যবিষয়ক প্রচারণা, প্রতিরোধ, চিকিৎসা, পুনর্বাসন ও আত্মকর্মসংস্থান সৃষ্টিতে সমন্বিত পদক্ষেপই পারে আত্মহত্যা কমাতে।