ক্যান্সার রোগে আক্রান্ত হয়ে দেশে প্রতিদিন কমপক্ষে ২৭৩ জনের মৃত্যু হয় বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। 

তিনি বলেন, দেশে এখন প্রায় ২০ লাখ মানুষ ক্যান্সারে আক্রান্ত। প্রতি বছর আরও প্রায় এক থেকে দেড় লাখ মানুষ এই তালিকায় যোগ হচ্ছে। 

বিশ্ব ক্যান্সার দিবস উপলক্ষে গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর মহাখালী ক্যান্সার হাসপাতালে এক অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, ‘বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো আমাদের দেশে অসংক্রামক রোগে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। বাংলাদেশে বছরে যত মানুষ মারা যায়, তার মধ্যে ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে ৬৭ শতাংশের মৃত্যু হয়। রোজ মারা যায় ২৭৩ জন। সে খবর আমাদের নেই। অথচ করোনার মৃত্যুটাকে আমরা সবাই দেখে থাকি। রোজ জানানো হচ্ছে বলে আমরা এটা জানতে পারি।’

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আহমেদুল কবীর, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (হাসপাতাল ও ক্লিনিকসমুহ) মো. ফরিদ হোসেন মিঞা, জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. স্বপন কুমার বন্দ্যোপাধ্যায়, শেখ রাসেল জাতীয় গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. ফারুক আহমেদ, জাতীয় বক্ষব্যাধি ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মুহাম্মদ সাইদুল ইসলাম অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘স্বাস্থ্যসেবা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে স্বাস্থ্য বিভাগের বিকেন্দ্রিকরণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ঢাকার বাতাস ভালো না, নদীনালায় শিল্পবর্জ্য ফেলা হয়। খাবারে ভেজাল মেশানো হয়। এসব দূষণের কারণে ফুসফুস, গলার ক্যানসারসহ বিভিন্ন ধরনের ক্যান্সার হয়। এসব বিষয়ে সচেতন হতে হবে।’ 

তিনি জানান, জাপানের অর্থায়নে আট বিভাগে ৮টি ইমেজিং সিস্টেম স্থাপন করা হচ্ছে, যেখানে এপ-রে, সিটি স্ক্যান, এমআরআই করার সুযোগ থাকবে। আট বিভাগে ইনস্টিটিউট অব বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি হাসপাতাল তৈরি করা হচ্ছে। আরও হাসপাতাল স্থাপন করা হবে। 

জাহিদ মালেক বলেন,‘রোগীদের ঢাকায় আসার দরকার নেই। ঢাকায় এলে ব্যয় হয়। তাদের অনেক কষ্ট হয়। ঢাকার হাসপাতালগুলোর ওপর চাপ অনেক বেশি পড়ে।’