নতুন নির্বাচন কমিশন (ইসি) গঠনে মতামত নিতে ৬০ বিশিষ্ট নাগরিক ও পেশাজীবীর সঙ্গে শনিবার থেকে বৈঠকে বসছে অনুসন্ধান (সার্চ) কমিটি। এরই মধ্যে তাদের কাছে বৈঠকের আমন্ত্রণ জানিয়ে চিঠি পাঠিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

তবে বিশিষ্ট নাগরিকের কাউকে নতুন করে আমন্ত্রণ জানানোর প্রয়োজন মনে হলে নামের তালিকা আরও লম্বা হতে পারে। এজন্য শুক্রবার বিকেল ৫টা পর্যন্ত মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ কার্যালয় খোলা থাকবে।

শনিবার সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত, দুপুর ১টা থেকে সোয়া ২টা পর্যন্ত এবং রোববারও সভা করবে কমিটি। সব বৈঠক সুপ্রিম কোর্ট জাজেস লাউঞ্জে অনুষ্ঠিত হবে। মন্ত্রিপরিষদ সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

এদিকে ইসি গঠনে জাতীয় পার্টি, জাসদসহ পাঁচটি রাজনৈতিক দল তাদের প্রস্তাবিত নামের তালিকা মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠিয়েছে।

সূত্র জানিয়েছে, যাদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে তাদের মধ্যে রয়েছেন সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল ও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা এ এফ হাসান আরিফ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য এবং বাসসের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, সংবিধান বিশেষজ্ঞ ড. শাহ্‌দীন মালিক, ব্যারিস্টার রোকনউদ্দিন মাহমুদ, কথাসাহিত্যিক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম, গণমাধ্যম গবেষক অধ্যাপক ড. মো. গোলাম রহমান, ইতিহাসবিদ মুনতাসীর মামুন, অধ্যাপক ড. জাফর ইকবাল, রাজনীতি বিশ্নেষক অধ্যাপক আসিফ নজরুল, সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব এম আব্দুল আজিজ, স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ তোফায়েল আহমেদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক এ এস এম মাকসুদ কামাল, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল ফিদা এম কামাল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান, ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনাম, চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং সমকালের স্বত্বাধিকারী এ. কে. আজাদ, ইত্তেফাক সম্পাদক তাসমিমা হোসেন, সিনিয়র সাংবাদিক আবেদ খান প্রমুখ।

এদিকে সাবেক বিচারপতি মঈনুল ইসলাম চৌধুরী কিংবা সাবেক সচিব ও এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ আব্দুল মজিদকে প্রধান নির্বাচন কমিশনার করার প্রস্তাব জানিয়ে ১০ জনের নামের তালিকা পাঠিয়েছে বাংলাদেশ কংগ্রেস।

জাসদের সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার স্বাক্ষরিত ১০ জনের নামের তালিকা মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে জমা দেওয়া হয়েছে। তবে দলের পক্ষ থেকে প্রস্তাবিত তালিকা প্রকাশ করা হবে না বলে জানানো হয়।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব আনোয়ারুল ইসলাম জানিয়েছিলেন, কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠন এবং অন্যদের কাছেও নামের প্রস্তাব চাওয়া হবে। তারাও সুপারিশ-পরামর্শ দিতে পারবেন।